হাসপাতালে ভর্তি এ টি এম শামসুজ্জামান

হাসপাতালে ভর্তি এ টি এম শামসুজ্জামান

SHARE
ATM samsuzzaman

হাসপাতালে ভর্তি এ টি এম শামসুজ্জামান, চোখে অস্ত্রোপচারের জন্য হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা এ টি এম শামসুজ্জামান। আজ বিকালে একুশে পদকপ্রাপ্ত এই অভিনেতার ডান চোখে অস্ত্রোপচার করানো হবে বলে জানা গেছে।

এর আগেও চোখের চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন এ টি এম শামসুজ্জামান। দীর্ঘদিন ধরেই তার ডান চোখে ছোট একটি কালো দাগ দেখা গিয়েছে। এক দশক আগে ভারতের মাদ্রাজের একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেখানে চিকিৎসা না নিয়েই চলে আসেন। গতকাল শুক্রবার তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে দ্রুত সার্জারি করতে বলেন।

বর্তমানে তিনি ধানমণ্ডির একটি হাসাপাতালে ভর্তি আছেন এবং সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

উল্লেখ্য, এ টি এম শামসুজ্জামান বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা, পরিচালক, কাহিনীকার, চিত্রনাট্যকার, সংলাপকার ও গল্পকার। অভিনয়ের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন পাঁচ বার। শিল্পকলায় অবদানের জন্য ২০১৫ সালে পেয়েছেন রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদক।

এটিএম শামসুজ্জামানের চলচ্চিত্র জীবনের শুরু ১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধূরির বিষকন্যা চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে। প্রথম কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখেছেন জলছবি চলচ্চিত্রের জন্য। ছবির পরিচালক ছিলেন নারায়ণ ঘোষ মিতা, এ ছবির মাধ্যমেই অভিনেতা ফারুকের চলচ্চিত্রে অভিষেক। এ পর্যন্ত তো শতাধিক চিত্রনাট্য ও কাহিনী লিখেছেন। প্রথম দিকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করেন তিনি। অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র পর্দায় আগমন ১৯৬৫ সালের দিকে। ১৯৭৬ সালে চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের নয়নমণি চলচ্চিত্রে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে আলোচনা আসেন তিনি। ১৯৮৭ সালে কাজী হায়াত পরিচালিত দায়ী কে? চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। তিনি রেদওয়ান রনি পরিচালিত চোরাবালিতে অভিনয় করেন ও শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব-চরিত্রে অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।