স্মার্ট দৃষ্টিহীনদের জন্য স্মার্ট ওয়াচ!

স্মার্ট দৃষ্টিহীনদের জন্য স্মার্ট ওয়াচ!

SHARE
smart-watch for blind

আধুনিককালে বিভিন্ন আধুনিক মডেলের ঘড়িতে বাজার সয়লাব। কোনো কোনো ঘড়িতে যুক্ত আছে ক্যালকুলেটর ডিভাইস, আবার কোনো কোনটিতে সংযুক্ত আছে ব্লুটুথ অপশন যার সাহায্যে বিভিন্ন স্মার্ট ফোন বা অন্যান্য ডিভাইসের সাহায্যে যোগাযোগ রক্ষা করা যায়।

কিন্ত এইবার বিজ্ঞানীরা করেছেন অন্য চিন্তা! সমস্ত পৃথিবী যখন ডিজিটাল যুগের ধারপ্রান্তে সেখানে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীরা কেন পিছিয়ে থাকবে? সেই কথা মাথায় রেখেই এবং এনালগ দুনিয়া থেকে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের ফিরিয়ে আনতেই দক্ষিণ কোরীয় সংস্থা ‘ডট’ বাজারে এনেছে স্মার্ট ব্রেল ওয়াচ। এই স্মার্ট ওয়াচ দিয়ে মেসেঞ্জারের মতো যে কোনো অ্যাপের সাহায্যে কথাবার্তা এমনকি গুগ্‌ল ম্যাপের সঙ্গে কানেক্ট করে রাস্তাঘাটের হদিসও মিলবে। আগামি মার্চেই এই ঘড়ি বাজারে আসছে বলে সংস্থাটির এক মুখপাত্র তাদের ওয়েবসাইটে দেয়া এক প্রতিবেদনে বলেছেন।

ডট জানিয়েছে, এই ঘড়ির উপর থাকবে চারটি ব্রেল বল। প্রতিটাতে থাকে ৬ টি করে বল। যা ব্রেলের এক একটি অক্ষর হিসেবে কাজ করে। ঐ বলগুলোর সাহায্যেই এগুলো ঘুরিয়ে অপরকে মেসেজ পাঠানো যাবে। তবে এটা কত দ্রুত পাঠানো যাবে তা নির্ভর করবে ব্যাবহারকারির ব্যাবহারের নিয়ন্ত্রণ করার উপর।

এদিকে সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, চলতি বছরের মার্চ মাসের মধ্যেই লন্ডনে এর বাজার উন্মুক্ত করা হবে এবং এই বছরই ১ লক্ষ্য ব্রেল স্মার্ট ওয়াচ তৈরির লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে তাদের। দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য বাজারে আগে যেসব ডিভাইস ছিল তাতে মেসেজ আসত অডিওতে। ফলে তা শোনার জন্য কানে দিতে হত হেডফোন। এমনকি অনেক সময় প্রকাশ্যেই সেই মেসেজ শুনতে হলে তা আর গোপন থাকত না। তাছাড়া এ ধরনের ঘড়ির দামও যেমন বেশি তেমনি তা বেশ বড়সড় ও ভারী হত। এই সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্যই মূলত এই ধারণার উদ্ভাবন। ২০১৪ সাল থেকেই এই ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিল ‘ডট’। আগে বিশ্বের ২৮.৫ কোটি দৃষ্টিহীনের মধ্যে মাত্র ৫ শতাংশ লোক অডিও ডিভাইসের ঘড়ি ব্যবহার করতেন। স্মার্ট ওয়াচ আবিষ্কারের পর সেই পরিসংখ্যানের ব্যাপক পরিবর্তন আসবে এমনটাই প্রত্যাশা বিশেষজ্ঞদের।