সৌন্দর্য চর্চায় ঘি-এর ব্যবহার

সৌন্দর্য চর্চায় ঘি-এর ব্যবহার

SHARE
Ghee for skin-care

প্রাচীনকাল থেকেই ভারতীয় অঞ্চলে সৌন্দর্য চর্চায় ঘি-এর ব্যবহার হয়ে আসছে। ঘি শুধু খাবারের স্বাদই বাড়ায় না, ত্বকেও নিয়ে আসে বাড়তি দীপ্তি। চলুন জেনে নেওয়া যাক সৌন্দর্য চর্চায় ঘি-এর ব্যবহার সম্পর্কে-

শুষ্ক ত্বকের জন্য: পরিমাণ মতো ঘি সামান্য গরম করুন। গোসলের আগে পুরো শরীরে মালিশ করে নিন। মনে রাখতে হবে ঘি খুব সামান্য গরম করতে হবে যা ত্বকের জন্য সহনীয়।

ঘি মাখার পর ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে গোসল করে ফেলুন। শীতের সময় এই প্রক্রিয়া বেশি উপকারী।

ঠোঁটের আর্দ্রতা ফেরাতে: রাতে ঘুমানোর আগে দুএক ফোঁটা ঘি আঙুলে নিয়ে ঠোঁটে মালিশ করুন। সকালে পাবেন কোমল ঠোঁট। ঘি ব্যবহারে ঠোঁটে গোলাপি আভা যুক্ত হবে।

চোখের কালি দূর করতে: প্রসাধনী ব্যবহার করেও অনেক সময় চোখের নিচের কালি থেকে রেহাই পাওয়া যায় না। তাই এমন সমস্যা থেকে রেহাই পেতে ঘরোয়া এই উপাদান একবার ব্যবহার করে দেখা যেতে পারে।

ঘুমাতে যাওয়ার আগে চোখের উপরে ও নিচে সামান্য পরিমাণে ঘি আলতো হাতে মালিশ করে নিন। সকালে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

নিষ্প্রভ ত্বকের জন্য: ত্বকে দীপ্তি ফিরিয়ে আনতে যে কোনো ফেইসপ্যাকে কয়েক ফোঁটা ঘি মিশিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে। কাঁচাদুধ, বেসন ও ঘি মিশিয়ে তৈরি ফেইসপ্যাক ত্বকে ব্যবহার করে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

তবে এখন থেকেই শুরু হোক ঘিয়ের সাথে রূপচর্চা।