সভ্যতা বাঁচাতে ১০০ বছরের মধ্যেই পৃথিবী ছাড়তে হবে – হকিং

সভ্যতা বাঁচাতে ১০০ বছরের মধ্যেই পৃথিবী ছাড়তে হবে – হকিং

SHARE
100 Years Left For Humans To Escape Earth; Hawking

সভ্যতা বাঁচাতে মানুষকে ১০০ বছরের মধ্যেই পৃথিবী ছাড়তে হবে, বাঁচার জন্য আশ্রয় নিতে হবে ভিনগ্রহে। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসার বিশ্বখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং এমনই কথা বলেছেন।

বাজি ধরা আর ভবিষ্যদ্বাণীর জন্য বিখ্যাত হকিং কথাটা এর আগেও বলেছিলেন দু’-এক বার। এ বার বলেছেন, আরও স্পষ্ট ভাবে। আর বলতে হয় বলেই কথাটা বলেছেন, এমনটাও নয়। তাঁর বক্তব্যের স্বপক্ষে বেশ কয়েকটি যুক্তিও দিয়েছেন হকিং। দেখিয়েছেন বেশ কয়েকটি কারণ।

তার মতে, পৃথিবী ছেড়ে অন্য গ্রহে মানুষ পাড়ি দিয়ে সেখানে বসবাসযোগ্য অবস্থা তৈরি করতে না পারলে আবহাওয়ার পরিবর্তন, গ্রহানুর হামলা, জনবিস্ফোরণের মতো ঘটনা পৃথিবীর সর্বনাশ ডেকে আনবে।

গতমাসেও  এই বিশ্ববন্দিত বিজ্ঞানী আশঙ্কার বাণী শুনিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, মানুষের মধ্যে এই আগ্রাসী মনোভাব, প্রযুক্তির দুরন্ত বৃদ্ধির হার—এসবের ফলে একদিন পরমাণু বা জৈব যুদ্ধে গোটা মানবজাতি ধ্বংস হবে। এই ধরণী তখন হয়ে উঠবে আমাদের বধ্যভূমি।

তিনি বলেন, “একশো বছরের মধ্যে অন্য কোনও গ্রহে আমরা আমাদের বসবাসের নতুন ঠিকানা খুঁজে নিতে পারলে আধুনিক মানুষের ‘হোমো সাপিয়েন্স সাপিয়েন্স’ প্রজাতি একেবারেই মুছে যাবে। নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে।’’

প্রযুক্তির দ্রুত অগ্রগতি ও তার সঙ্গে মানুষের আচরণগত পরিবর্তনের পাশাপাশি পারমাণবিক যুদ্ধ পৃথিবীর ধ্বংসে অনুঘটকের কাজ করতে পারে। তবে বিশ্ব নেতারা চাইলে ধ্বংসের হাত থেকে মানবজাতিকে বাঁচাতে পারে। এর জন্য দরকার বিশ্বের ঐক্যবদ্ধটা।

গত বছরের শেষের দিকে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে এক আলোচনাতে অংশ নিয়ে তিনি বলেছিলেন ‘পৃথিবীর বেশি সময় নেই! পৃথিবীর আয়ু বাকি আছে ১ হাজার বছর! তারপরেই পৃথিবী থেকে লুপ্ত হয়ে যাবে মানব জাতি!’