শ্যাম্পু করার সময় খেয়াল রাখবেন যে বিষয়গুলো

শ্যাম্পু করার সময় খেয়াল রাখবেন যে বিষয়গুলো

SHARE
how to use shampoo properly

কথায় আছে, যে রাঁধে সে নাকি চুলও বাঁধে। কিন্ত সেই চুল যদি অস্বাস্থ্যকর হয় তাহলে কি চলে? তাই বিউটিশিয়ানরা বলেন, প্রতিদিন ধুলো ময়লায় বিপর্যস্ত চুলে শ্যাম্পু ব্যবহার করাটা অপরিহার্য বিষয়। চুল পরিষ্কার রাখতে বর্তমানে প্রায় সবাই শ্যাম্পু ব্যবহার করেন। এটি চুল পরিষ্কার করার পাশাপাশি চুলের সৌন্দর্যবর্ধনেও ভূমিকা রাখে। কিন্ত আবার এখানেই ঘটে বিপত্তি!

শুধু চুলে শ্যাম্পু দিলেই চলবে না, তা লাগানোর নিয়মটাও হতে হবে যুতসই- একথা সম্পর্কে অনেকেই অজ্ঞ। ফলে দেখা যায়, উপকারের বদলোতে অপকারই ঘটে বেশি। চুল মসৃণ, সতেজ ও সজীব থাকার বদলোতে হয়ে উঠে রুক্ষ, প্রাণহীন। তাছাড়া চুল পড়ারও মারাত্মক সম্ভাবনা থাকে অনিয়মিত চুলের যত্নের ফলে। তাই আমরা আজ আপনাদের জন্য এনেছি চুলে শ্যাম্পু করার নিয়মসম্বলিত গুরুত্বপূর্ণ টিপস। চুলে শ্যাম্পু করার সময় এই বিষয়গুলো অবশ্যই খেয়াল রাখবেনঃ

এক শ্যাম্পু দিয়ে সারা বছর কাজ চালাবেন না। প্রতি ২ মাস অন্তর অন্তর শাম্পুর ব্র্যান্ড বদলান। কারণ সব শ্যাম্পুতে সব ধরনের উপাদান থাকে না। তাই ব্র্যান্ড ঘুরিয়ে ফিরিয়ে শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

অনেকেই শ্যাম্পু করার আগে চুলে তেল দিয়ে ফেলেন। ফলে চুলে ময়লা থাকলে তা তেলের সাহায্যে চুলে আটকে যায়। তাই এই বিষয়টি বিশেষভাবে মাথায় রাখতে হবে।

শ্যাম্পু করার আগে চুল ভিজিয়ে নিন যাতে চুল ঝরঝরা হয়। প্রয়োজনে ২ বার ভিজিয়ে নিন। এতে একদিকে যেমন উপরের ময়লা কেটে আপনার শাম্পুকে নিচে নিয়ে যাবে, অন্যদিকে চুলে শ্যাম্পু মাখাতেও সাহায্য করবে।

রাসায়নিক উপাদান সমৃদ্ধ শ্যাম্পুর চেয়ে হারবাল সমৃদ্ধ প্রাকৃতিক শ্যাম্পু ব্যবহার করাটাই অধিক যুক্তিযুক্ত।  

মাথার একই স্থানে যাতে শ্যাম্পু করা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন। সাধারণত আমরা তালুর এখান থেকে শ্যাম্পু করা শুরু করি। কিন্ত ওখানের চামড়াই সব চেয়ে বেশি পাতলা হয়। তাই সব সময় এক জায়গা থেকে শুরু না করে বিভিন্ন জায়গা থেকে শুরু করা উচিত।

অনেকেই কন্ডিশনার চুলের গোঁড়ায় ব্যবহার করেন। এর কাজ চুলকে নরম করা। চুলের গোঁড়ায় কন্ডিশনার দিলে চুলের গোঁড়া নরম হয়ে যায়। তাই কন্ডিশনার সবসময় চুলের আগায় ব্যবহার করতে হবে।

খুসকি বা ময়লা বেশি জমে থাকে স্কাল্পে। শ্যাম্পু করার সময় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে চুল ধোয়ার দিকেই জোর দেওয়া হয় বেশি। ফলে লাভের লাভ কিছু হয় না। যা ময়লা স্কাল্পে থাকে, তা থেকেই যায়।  

চুলের ময়লা ভালোভাবে তুলতে অনেকেই জোর প্রয়োগ করে চুলে শ্যাম্পু ঘষতে থাকেন। ফলে গোঁড়া ভেঙে যায়, চুল পড়তে থাকে। তাই শ্যাম্পু করার সময় আলতো করে ম্যাসাজ করতে হবে।

শ্যাম্পু করার পর চুল ধোঁয়ার ক্ষেত্রে গরম পানি একেবারেই ব্যবহার করা উচিত না। এতে চুলের গোঁড়া নরম হয়ে চুল উঠে যেতে পারে।

শ্যাম্পুর পর চুল ধোয়া হয়ে গেলে তোয়ালে দিয়ে জোরে জোরে ঘষে মোছা উচিত না। চুলের জল শুকানোর জন্য গামছা বা তোয়ালে দিয়ে চুল ঝাড়াও ঠিক নয়। এতে চুল বেশি ওঠে।

শ্যাম্পু করার পর ভেজা চুল একদমই আঁচড়াবেন না। এতে চুলের গোঁড়ার সব চেয়ে ক্ষতি হয়।