শীতে চাই রঙ-বেরঙের শাল

শীতে চাই রঙ-বেরঙের শাল

SHARE
Colourful Shawl

শীতের হাওয়ার কাঁপন জানান দিয়ে যাচ্ছে যে চলে এসেছে শীত। পৌষ এবং মাঘ এই দুই মাস শীতকাল। চারিদিকের হিম হিম বাতাস। আর তার সাথে গরম কাপড় আর গরম চা ছাড়া যেন জমে ওঠে না সকালটাই। ফ্যাশন প্রিয় মানুষদের কাছে খুবই পছন্দের একটি সময় হল এই শীতের মৌসুম। শীতের হরেক ফ্যাশনের মধ্যে তরুণ-তরুণী পছন্দের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে শাল।

বর্তমানে নানা ধরনের শাল দেখা যায়। কোনোটি হালকা কোনোটি আবার ভারী। শীতে খুবই আরামদায়ক এই শাল। শালের ক্ষেত্রে সবার পছন্দের শীর্ষে থাকে খাদি শাল। এছাড়া শালের উপর উলের কাজ কিংবা নানা সুতার কাজ করা শাল নিয়ে এসেছে নতুনত্ব।

শাল যে শুধু খাদিরই হয়ে থাকে তা কিন্তু নয়। বর্তমানের ফ্যাশন হাউজগুলো ফ্যাশন প্রিয় মানুষদের কথা চিন্তা করে তৈরি করছে সিল্ক, পশমি সুতা, মোটা সুতি ইত্যাদি কাপড়ের শাল। এর সঙ্গে এখন আবার যুক্ত হয়েছে নানা নকশা। তাতে কখনো কখনো আবার যুক্ত হচ্ছে পুঁতি, চুমকি এবং দুই রঙা কাপড়ের ব্যবহার। অফিসে, বিশ্ববিদ্যালয়ে কিংবা বাড়িতে সব জায়গাতেই ছেলেমেয়ে উভয়ের কাছেই চাহিদা রয়েছে শালের।

শালের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে কাশ্মীরি শাল। দূর দূরান্ত থেকে মানুষ এই শাল সংগ্রহ করে থাকে। এই কাপড়ে রয়েছে এমন এক উষ্ণতা যা শীতকে আপনার কাছে থেকে  রাখে অনেক দূরে।

এছাড়া আমাদের দেশীয় শালের চাহিদাও বর্তমানে কম নয়। মানুষ এখন আগ্রহ নিয়ে দেশীয় পণ্যের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে। দেশে তৈরি শালের মধ্য পশমিনা শাল উল্লেখযোগ্য। এছাড়া রয়েছে লুধিয়ানা, জয়পুরি, চায়নিজ, বার্মিজ সহ আরো অনেক রকমের শাল।

শীতের শুরু থেকেই শালের গ্রহণযোগ্যতা থাকে অনেক বেশী। হালকা শীতে আপনি বাছাই করে নিতে পারেন খাঁদি, তাঁত, গ্রামীণ চেক সহ প্রিন্ট এবং এম্ব্রয়ডারি আর হাতের কাজ করা শাল। ঘরে পরার পাশাপাশি এসব শাল আপনি পড়ে যেতে পারেন কাজের ক্ষেত্রেও।

পার্টির জন্য আপনার পছন্দের তালিকায় রাখতে পারেন সিল্কের, ফেব্রিক্সের উপর নকশিকাঁথার সহ নানা ধরনের ভারী কাজের শাল। আরেকটু জমকালো ভাব আনতে চাইলে তাতে বসিয়ে নিতে পারেন পুঁতি কাঁচ। রঙের ক্ষেত্রে পছন্দ করতে পারেন সাদা-কালো, সবুজ, বাদামী, ম্যাজেন্ডা প্রভৃতি।

শালের ক্ষেত্রে রঙের পাশাপাশি সমানভাবে নজর দিন এর কাজের প্রতিও। অনেকে অবশ্য রঙ আর নকশা দেখে  কিনে নেন শাল। তবে তা একেবারেই ঠিক নয়। শালের ক্ষেত্রে সবার আগে মাথায় রাখতে হবে উষ্ণতার কথা।

এই শীতের হিম শীতল বাতাসকে ঢেকে নিন শালের উষ্ণ পরশে।