শরীরে রক্তের ঘাটতি দূর করবে যেসব খাবার

শরীরে রক্তের ঘাটতি দূর করবে যেসব খাবার

SHARE
Iron-rich foods to prevent anemia

রক্তের হিমোগ্লোবিনের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে নিচে নেমে গেলে তাকে বলা হয় এনিমিয়া বা রক্তশূন্যতা। হিমোগ্লোবিন এর প্রধান কাজ শরীরের বিভিন্ন অংশে অক্সিজেন সরবরাহ করা। রক্তস্বল্পতার কারণে নানা রকম অসুখ-বিসুখ বাসা বাঁধতে পারে আমাদের শরীরে। এ রোগে নারী ও শিশুরা বেশি ভুগে থাকেন। রক্তস্বল্পতার ফলে শরীরে অক্সিজেনের ঘাটতি হয় এবং আপনাকে অসুস্থ ও দূর্বল দেখায়। এক্ষেত্রে নির্দিষ্ট খাবারগুলি নিয়মিত খাওয়া শুরু করলে অল্প সময়ের মধ্যেই শরীরে রক্তের ঘাটতি দূর করা সম্ভব। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক কোন কোন খাবার খেলে শরীরে রক্তের ঘাটতি দূর করবে।

পালং শাকঃ ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এ, বি ৯, ই, সি, বিটা কারটিন এবং আয়রন রয়েছে পালং শাকে, যা রক্ত তৈরি করে থাকে। আধা কাপ পালং শাক সিদ্ধতে ৩.২ মিলিগ্রাম আয়রন আছে যা নারীদের দেহে ২০% আয়রনের ঘাটতি পূরণ করে। এক কথায় এ শাককে সুপার ফুট বলা হয়।

কলাঃ শরীরে শুধুমাত্র পাটাশিয়ামের ঘাটতি দূর করতেই নয়, আরও নানা উপকারে লাগে এই ফলটি। আসলে কলায় উপস্থিত বেশ কিছু কার্যকরী উপাদান শরীরে হিমোগ্লবিনের ঘাটতি দূর করার পাশাপাশি লহিত রক্ত কণিকার সংখ্যা বৃদ্ধিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। দিনে দুবার করে একটা কলা, ১ চামচ মধুর সঙ্গে খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন উপকার মিলবে।

বিট: বিটে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে। এটি অল্প সময়ের মধ্যে রক্তস্বল্পতা দূর করে দেয়। শরীরে লোহিত রক্তকণিকা বৃদ্ধি করে এবং দেহে অক্সিজেন সরবারহ করতে সাহায্য করে।

ডালিম: ডালিম ভিটামিন সি সমৃদ্ধ একটি ফল। এতে প্রচুর পরিমাণ আয়রন আছে, যা দেহে রক্ত প্রবাহ সচল রেখে দুর্বলতা, ক্লান্ত ভাব দূর করে থাকে। নিয়মিত ডালিম খেলে রক্তস্বল্পতা দূর হয়ে যায়।

আপেলঃ আপনি কি রক্তাল্পতায় ভুগছেন? তাহলে প্রতিদিন কম করে একটা আপেল খাওয়া শুরু করুন। তাহলেই দেখবেন অল্প দিনেই আপনার রোগ সেরে যাবে। আসলে এই ফলটিতে প্রচুর মাত্রায় আয়রণ রয়েছে, যা শরীরে এই খনিজের ঘাটতি দূর করে লহিত রক্ত কমিকার সংখ্যা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

ডিমঃ আয়রনের উৎস ডিম। দিনে দুটি ডিম খাওয়া দৈনিক আয়রনের চাহিদার ৮ শতাংশ পূরণ করে।

তিল বীজঃ আয়রণ সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে অ্যানিমিয়ার প্রকোপ কমাতে এটি দারুন কাজে দেয়। এক্ষেত্রে একটা কাপের এক চতুর্থাংশ পরিমাণ তিল বীজ, দৈনিক আয়রনের চাহিদার প্রায় ৩০ শতাংশের যোগান দেয়।

গরুর কলিজাঃ মাত্র ১ টি স্লাইস গরুর কলিজাতে রয়েছে ৪ মিলিগ্রাম আয়রন। এছাড়াও গরুর কলিজা প্রোটিন, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, ভিটামিন এ ও ভিটামিন ডি তে ভরপুর। এবং এতে রয়েছে মাত্র ১৩০ ক্যালরি।

এ ছাড়া মটরশুটির মধ্যেও আয়রন ভরপুর। আধা কাপ মটরশুটি প্রতিদিনের চাহিদার ১০ শতাংশ মেটায়।কচু শাকেও প্রচুর পরিমানে আইরন থাকে