মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের অবস্থা আর সুচির নোবেল !!!

মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের অবস্থা আর সুচির নোবেল !!!

SHARE
Myanmar's Rohingya status and Souci Nobel !!!

চলমান মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের সহিংসতা থেকে বাঁচতে রোহিঙ্গারা তাদের বাড়িঘর ছেড়ে যেভাবে পালিয়ে এসেছে সেটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে উঠে আসছে না। বিষয়টিকে সহজভাবেই দেখছে বিশ্বনেতারা। তাদের মানবতা আজও নিশ্চুপ, তাই শান্তির নোবেল আজও রয়েছে ওইদেশের শাসক অং সান সুচির হাতে।

নোবেল গ্রহনের সময় অং সান সুচি বলেছিলেন, নোবেল কমিটি আমাকে শান্তি পুরস্কার দেওয়ার মাধ্যমে এটারই স্বীকৃতি দিয়েছেন যে, মিয়ানমারের নির্যাতিত জনগণ, যাদের বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছিল, তারাও বিশ্বেরই অংশ। বিশ্ব মানবতা যে এক, তারা সেটারই স্বীকৃতি দিয়েছেন। কিন্তু সেই বিশ্ব মানবতা রক্ষার দাবি কি সমুন্নত রাখতে পেরেছেন অং সান সুচি? বিশেষ করে বিশ্বের সবচেয়ে নিপীড়িত জাতিগোষ্ঠী রোহিঙ্গাদের রক্ষার ক্ষেত্রে। যাদের অস্তিত্ব এখন বিলীন হওয়ার মুখে। সংখ্যাগুরু বৌদ্ধ ও তার দেশের সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে যারা আজ দেশহীন এক জাতিগোষ্ঠী!

Myanmar's Rohingya status and Souci Nobel !!!

জাতিতে জাতিতে, গোষ্ঠীতে গোষ্ঠীতে যে হিংসা, দখল আর বিদ্বেষ ছড়িয়েছে তার বিষবাষ্পে এসব রোহিঙ্গারা আজ পরিবার, শিশু সন্তান নিয়ে সাগরে-নদীতে ভাসছে। প্রতিদিন রোহিঙ্গাদের নৌকা ডুবি, নারী-শিশুর মৃতদেহ নদীর কিনারায় পাওয়া যেন কোন সাধারন ঘটনা। আর এমনটা হবেইনা কেন! রাখাইনের সংঘাত কবলিত এলাকাগুলোতে গণমাধ্যমের প্রবেশাধিকার খুবই সীমিত। মিয়ানমারের সংবাদ মাধ্যমে প্রধান্য পাচ্ছে রাখাইনে ‘সন্ত্রাসী হামলার’ বিষয়টি। সেজন্য ‘বাঙালী সন্ত্রাসীদের’ দায়ী করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, সন্ত্রাসীরা গ্রামগুলো জ্বালিয়ে দিচ্ছে। রোহিঙ্গারা যে বাংলাদেশে পালিয়ে গিয়ে আশ্রয় নিচ্ছে সে সংক্রান্ত কোন খবর নেই মিয়ানমারের সংবাদ মাধ্যমে।

LEAVE A REPLY