রূপচর্চায় তেজপাতা

রূপচর্চায় তেজপাতা

SHARE
bay leaf

রান্নার স্বাদ এবং গন্ধ বৃদ্ধিতে একটি অপরিহার্য উপাদান হল তেজপাতা। রান্নার কাজ ছাড়াও শারীরিক নানা সমস্যা দূর করতেও ব্যবহার করা হয় এই তেজপাতা। বহুগুণ সম্পন্ন তেজপাতার রূপচর্চায়ও রয়েছে নানা ব্যবহার। ত্বকের রিংকেল, চুল পড়ার সমস্যা, চুলের খুশকি এবং উকুন কিংবা দাঁতের হলদেটে ভাব যে কোনো কিছু থেকে মুক্তি দিতে পারে এটি।

১। ত্বক পুনরুজ্জীবিত করা

দ্রুত ত্বক পুনরুজ্জীবিত করতে তেজপাতা বেশ কার্যকর। দুই কাপ পানিতে পাঁচটি তেজপাতা অল্প আঁচে জ্বাল দিন। এরপর একটি টাওয়াল পানিতে ভিজিয়ে নিন। এটি দিয়ে ৫ মিনিট ত্বক স্টিম করুন। এটি ত্বক রিল্যাক্স করার পাশাপাশি বৃদ্ধি করবে ত্বকের গ্লো।

২। ফেইস প্যাক

আধা কাপ পানিতে এক টেবিল চামচ তেজপাতা গুঁড়ো দিয়ে দুই-তিন মিনিট জ্বাল দিন। একটি পাত্রে দুই চার টেবিল চামচ মুলতানি মাটি তেজপাতার পানির সাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এই পেস্টটি ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি ব্রণ, ত্বক থেকে মৃত কোষ এবং ব্যাকটেরিয়া দূর করতে খুবই কার্যকরী।

৩। উকুন দূর করতে

৫০ গ্রাম তেজপাতা গুঁড়ো করে নিয়ে ৪০০ মিলিলিটার পানিতে জ্বাল দিতে থাকুন যতোক্ষণ না ১০০ মিলিতে পৌছায়। শুকিয়ে এলে ছেঁকে পানি আলাদা করে নিন। এই পানি চুলের গোঁড়ায়, মাথার ত্বকে ভালো করে ম্যাসেজ করে নিন। ৩/৪ ঘণ্টা রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন। এটি কয়েকবার ব্যবহার করুন। দেখবেন উকুন দূর হয়ে গেছে।

৪। খুশকি দূর করতে

চুলের খুশকি দূর করতে অনেক কার্যকরী তেজপাতা। শুকানো প্রথমে তেজপাতার গুঁড়োর সাথে টকদই মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এবার এটি চুলে লাগান। কিছুক্ষণ পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। এটি খুশকি দূর করার পাশাপাশি মাথার চুলকানি দূর করে থাকে।

৫। কন্ডিশনার হিসেবে ব্যবহার

কিছু তেজপাতা পানিতে সিদ্ধ করে নিন। এবার এটি ছেঁকে ঠাণ্ডা করে নিন। শ্যাম্পু করার পর এই পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এটি কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করবে। আর নিয়মিত ব্যবহারে এটি চুলকে করে তুলবে ঝলমলে।

৬। দাঁত সাদা করতে

টুথপেস্টের সাথে তেজপাতা গুঁড়ো মিশিয়ে দাঁত মাজুন। এটি দাঁতের হলদেটে ভাব দূর করে মাড়ির যত্ন নিয়ে থাকে। আপনি চাইলে শুধু তেজপাতা গুঁড়ো দিয়েও দাঁত ব্রাশ করতে পারেন।