মাখন তৈরির ঘরোয়া উপায়

মাখন তৈরির ঘরোয়া উপায়

SHARE
Butter-home-made

সকালের নাস্তায় অনেকেই খেয়ে থাকেন স্বাদ আর পুষ্টিতে ভরা মাখন। এছাড়া খাবারের স্বাদ বাড়াতে মাখনের বিকল্প নেই। মাখন একটি দুগ্ধজাত বা দুধের পণ্য, যা সাধারণ দুধ বা দুধের প্রক্রিয়াজাত দুগ্ধ ক্রীম থেকে তৈরি করা হয়। এটি সাধারণত কোন খাবারে মেখে খাওয়া হয়। এছাড়া রান্না করতে যেমন, কিছু ভাঁজতে, সস তৈরিতে অথবা খাবারে বিশেষ সুঘ্রান আনতে মাখন ব্যবহৃত হয়। মাখনে চর্বি, পানি এবং দুগ্ধ প্রটিন থাকে।

মাখন সাধারণ গরুর দুধ দিয়ে তৈরি হয়। এছাড়া মাখন অন্য প্রাণী যেমন, ভেড়া, ছাগল, মহিষের দুধ দিয়েও তৈরি করা হয়। এতে কখনও কখনও লবণ, সুগন্ধি, প্রিজার্ভেটিবও ব্যবহার করা হয়। দুধ থেকে তৈরি ঘি, একটি বিশেষ ধরণের মাখন। মাখন দেখতে হলুদ রঙের তবে এটির রঙ গাঢ় হলুদ থেকে সাদা রঙের হতে পারে। এর রঙ নির্ভর করে দুধের উপর এবং ঐ প্রাণীর খাদ্যাভ্যাসের উপর। অনেক সময় প্রস্তুতকারীরাও রঙ মিশিয়ে থাকে।

আমরা সাধারণত যেসব মাখন ব্যবহার করে থাকি তা বাজার থেকে কিনে আনা হয়। কিন্তু বাজার থেকে কেনা মাখনে পুষ্টিগুণ নাও থাকতে পারে। আপনি খুব সহজেই ঘরে বসে তৈরি করে নিতে পারেন মাখন। আর সেজন্য প্রয়োজন মাত্র দুটি উপকরণ। চলুন জেনে নিই মাখন তৈরির ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে-

প্রয়োজনীয় উপকরণ : দুধের সর অথবা মালাই, পানি।

প্রস্তুতপ্রণালি : প্রতিদিনের দুধ থেকে মালাই বা দুধের সর আলাদা করে জমিয়ে রাখুন। নরমাল ফ্রিজে এই মালাই ২-৩ দিন রাখতে পারবেন। তবে ড্রিপ ফ্রিজে এটি ১০-১৫ দিন পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে পারবেন। এবার একটি ফুড প্রসেসর নিন। ফুড প্রসেসরে মালাই দিয়ে দিন। এর সাথে আধা কাপ পানি দিয়ে ব্লেন্ড করুন (একটি বড় বোলের এক বোল দুধের সর বা মালাইয়ের জন্য আধকাপ পানি)।

২ মিনিট ব্লেন্ড করুন। ব্যস তৈরি হয়ে গেল মাখন। মাখন কিছুটা শক্ত করতে চাইলে এতে বরফ পানি মিশিয়ে আবার ব্লেন্ড করুন। এতে মাখন জমাট বাঁধবে। আপনি যদি মাখন লবাণক্ত করতে চান, তবে এর সাথে এক চিমটি লবণ দিয়ে দিতে পারেন। এবার একটি পাত্রে মাখন ঢেলে নিন। মাখন হাত দিয়ে বল বানিয়ে বাড়তি পানি বের করে ফেলুন। এই বাটার মিল্ক আপনি বিভিন্ন রান্নায় ব্যবহার করতে পারবেন। এবার ফ্রিজে রেখে সংরক্ষণ করুন।