ভ্রমণের খরচ কমানোর উপায়

ভ্রমণের খরচ কমানোর উপায়

SHARE
Travalling cost

ঘুরতে কে না ভালোবাসে? তবে ভ্রমণপ্রিয় মানুষের মধ্যে একটি কথা চালু আছে, ‘যদি ফ্রিতে ভ্রমণ করা যেত, তবে আমার দেখা পাওয়াই দুষ্কর হয়ে যেত।’ অর্থাৎ ভ্রমণে বেরোনো বেশ সোজা হয়ে যেত। কিন্তু আপনি চাইলেই আপনার ভ্রমণকে স্বল্প বাজেটে আনন্দদায়ক করতে পারেন। আসুন জেনে নিই ভ্রমণের খরচ কমানোর উপায় সম্পর্কে-

দলবেঁধে ঘোরাঘুরি

দলবেঁধে কোথাও ঘুরতে বেরোনো অনেক দিক থেকে আপনার খরচ কমাতে সাহায্য করবে। হোটেল থেকে যাতায়াত খরচ, খাবার থেকে শুরু করে কেনাকাটা সবকিছুতেই তখন একটা ভালো অঙ্কের খরচ বেঁচে যাবে, যা একা ঘুরতে গেলে পাবেন না। তা ছাড়া সবাই মিলে গেলে মনে যেমন সাহস থাকে, সেই সঙ্গে হইহুল্লোড় আর আনন্দের দিকটায়ও খুব একটা ভাটা পড়ে না। তবে এ ক্ষেত্রেও খেয়াল রাখতে হবে সবার সব চাহিদা পূরণ হচ্ছে কি না, যাতে দলের কারও মন খারাপ করে বাড়ি ফিরতে না হয়।

স্মার্টফোনে ভ্রমণ অ্যাপ

ট্রেকিং কিংবা নতুন কোনো জায়গা ঘুরে বেড়ানোর ক্ষেত্রে স্মার্টফোনের ভ্রমণ বা ট্রাভেল অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন। বিশেষ করে ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই যে অ্যাপগুলো আপনাকে সাহায্য করতে পারবে সেগুলো ব্যবহার করুন। ম্যাপ, ফার্স্ট এইড হেল্পসহ নানান টুলস আছে এমন অ্যাপ আপনাকে যেকোনো ব্যয় সাপেক্ষ দুর্ঘটনা এড়াতে সাহায্য করবে।

জেনে নিন কোথায়, কখন কী অফার চলছে

প্রায় সারা বছরই দৃষ্টিনন্দন জায়গাগুলোতে বেড়ানোর জন্য ভ্রমণ প্যাকেজসহ নানা কিছুতে বিভিন্ন ছাড় দেওয়া হয়। আগে থেকে খোঁজ নিয়ে রাখলে দ্রুত সেবা পেতে পারবেন। হোটেল-রেস্তোরাঁ, পরিবহনে কোনো ছাড়ের ব্যবস্থা আছে কি না, সেটাও আগে থেকে জেনে নিতে পারেন।

হোটেলের বদলে…

যাঁরা খুব ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করেন তাঁদের ভ্রমণের অন্যতম উদ্দেশ্য থাকে নতুন পরিবেশের সঙ্গে পরিচিত হওয়া। পরিচিত হওয়ার সবচেয়ে সোজা ও কার্যকর উপায় হলো সেই লোকালয়ের মানুষের প্রাত্যহিক জীবনের সঙ্গে নিজেকে খাপ খাইয়ে নেওয়া। বাংলাদেশে এখনো অ্যাপার্টমেন্ট এক্সচেঞ্জ বিষয়টি নতুন হলেও দেশের বাইরে এটি বেশ জনপ্রিয়। অর্থাৎ, আপনার পরিচিত কিংবা খানিকটা পরিচিত কেউ কক্সবাজার থেকে কোনো কাজে ঢাকায় আসছেন এবং আপনারও কক্সবাজার ঘুরে আসার শখ। সে ক্ষেত্রে দুজনে নিজেদের অ্যাপার্টমেন্ট একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য অদলবদল করতে পারেন। এতে করে ভ্রমণের স্থানের একটা প্রাত্যহিক পরিবেশ যেমন পাবেন, তেমনি হোটেল খরচের একটা বড় অংশ বেঁচে যাবে।

জেনে নিন খাওয়ার বিষয়

বাংলাদেশে অনেক হোটেলে সকালে সৌজন্য নাশতার (কমপ্লিমেন্টারি ব্রেকফাস্ট) ব্যবস্থা থাকে। আপনি যে হোটেলে থাকবেন সেখানে এ রকম ব্যবস্থা আছে কি না জেনে নিতে পারেন। আবার অনেক স্থানীয় হোটেলে দুপুরের খাবারে বিশেষ ছাড় থাকে। আপনি চাইলে সেটাও চেখে দেখতে পারেন। এতে করে স্থানীয় খাবারের স্বাদ পাবেন একদম কম খরচে। অপরদিকে এমনটি করতে পারেন রাতের খাবারের ক্ষেত্রেও, কেননা রাতে হোটেল কিংবা রেস্তোরাঁগুলোতে ভিড় বেশি থাকে। দুপুরে খাওয়ার সময় আপনি যদি রাতে কোনো হোটেল কিংবা রেস্তোরাঁয় বুফের ব্যবস্থা কিংবা বিশেষ অফার চলছে কি না জেনে নেন, তবে রাতের খরচ ও ভোগান্তি দুটোই কমতে পারে।

স্বল্প সময়ে, স্বল্প খরচে আকাশপথ

বিমানের টিকিটেও ছাড় থাকে নানা সময়ে। আপনি যদি যাওয়া-আসার টিকিট একসঙ্গে কাটেন তবে সে ক্ষেত্রেও থাকে বিশেষ ছাড়। বিভিন্ন ক্রেডিট কার্ডে অফার চলে। সেগুলোও কাজে লাগাতে পারেন।