বয়স কমান পালং শাক দিয়ে

বয়স কমান পালং শাক দিয়ে

SHARE
Palon shakh

দুর্বল স্মৃতিশক্তি, অনেক কিছু ভুলে যাওয়া, অল্পেই বুড়িয়ে যাওয়া-এসব সমস্যা এড়াতে নিয়ম করে পালং শাক খান। শুধু তা-ই নয়, ক্যান্সার প্রতিরোধেও অব্যর্থ দাওয়াই এই পালং।

পালং শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফ্ল্যাভনয়েড যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে এবং  মস্তিষ্ককে সতেজ রাখে। ব্রেনের বয়স কমাতে সাহায্য করে। দীর্ঘদিন মস্তিষ্কের শক্তি অটুট রাখে। যার ফলে অনেক বেশি বয়স পর্যন্ত স্নায়ুতন্ত্র নির্ভুলভাবে কাজ করে।

এছাড়া এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-ই। দিনে গড়ে ৩০ গ্রাম পাংল খেলে ভবিষ্যতে অ্যালঝাইমার্স হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যায়।

পালংয়ে ফ্ল্যাভনয়েড মহিলাদের শরীরে অব্যর্থ ওষুধের মত কাজ করে। গর্ভাশয়ে ক্যান্সারের সম্ভাবনা কমে যায় প্রায় ৪০ শতাংশ। পালংয়ে থাকা ক্যারটিনয়েড, নিওজ্যানথিন প্রস্টেট ক্যানসারের কোষকে মেরে ফেলে।

শুধু মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখা বা ক্যান্সার প্রতিরোধই নয়, শরীরকে সুস্থ ও নীরোগ রাখতে পালংয়ের বিকল্প আর নেই। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ। যা চোখের ভিতরের ও বাইরের অংশগুলোয় পুষ্টি জুগিয়ে অকাল অন্ধত্ব থেকে চোখকে রক্ষা করে।

পালংয়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আয়রন যা মাতৃত্বকালীন ডায়াবেটিস থেকে শরীরকে রক্ষা করে। গর্ভস্থ শিশুর মেধা বিকাশে এই শাকের গুরুত্ব অপরিসীম। তাছাড়া ভিটামিন বি-১, বি-২, বি-৩ ও বি-৬ প্রচুর পরিমাণে রয়েছে পালংয়ে যা  চুল পড়া রোধ করে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতাও বাড়ায়।