বিষন্নতা দূর করার উপায়

বিষন্নতা দূর করার উপায়

SHARE
How to remove depression

জীবনে চলতে গিয়ে নানা প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হয় আমাদের। কখনো নিজের অজান্তেই মন খারাপ হয়ে যায়। ভর করে বিষন্নতা। আর এই বিষন্নতা অল্প সময়ের জন্য তো হতেই পারে। কিন্তু সমস্য বাঁধে তখনই, যখন বিষন্নতা দীর্ঘ সময়ের জন্য আসে। মনের আকাশে বিষন্নতা একবার দেখা দিলে জীবনে ছেয়ে যাবে কালো মেঘের আঁধার। তবে এই বিষন্নতায় ডুবে থাকা কোনো কাজের কথা নয়। বিষণ্নতা দূর করার জন্য সচেষ্ট হতে হবে আপনাকেই। জেনে নিন, আপনার মনের আকাশ থেকেবিষন্নতার মেঘগুলোকে কিভাবে সরিয়ে দেবেন সে সম্পর্কে-

# বিষণ্ণতার প্রথম এবং প্রধান কারণ হল ঘুমের অভাব। বিষন্নতা দূর করতে আপনাকে পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে। ঘুমের ব্যঘাত শুধু আমাদের শারীরিক ভাবেই ক্ষতি করে না, এটা তৈরি করে মানসিক অবসাদ এবং বিষণ্ণতা। প্রতিদিন কমপক্ষে ৮ ঘণ্টা ঘুমালে বিষণ্ণতা দূর করা অনেকটা সহজ হয়ে যায়।

# সঠিকভাবে খাদ্যগ্রহণ অনেকটাই কমিয়ে দেয় এই বিষন্নতা। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, উপযুক্ত পরিমানে পুষ্টিকর খাবারের অভাবে বিষণ্ণতা দেখা দিতে পারে, আর তাই তারা ভিটামিন বি সমৃদ্ধ খাবার খেতে বলেন বেশি করে।

# বিষণ্ণতা দূর করার অন্যতম উপায় হল হাসি। হাসিখুশি থাকুন, যত কষ্টই হোক। মানুষের জীবনে কষ্ট থাকবেই, এমন কাউকে পাবেন না, যার জীবনে কষ্ট নেই। কাজেই হাসুন, বিষণ্ণতাকে দূর করুন।

# গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, কৃতজ্ঞতা প্রকাশে বিষণ্ণতা কমে। তাই কেউ আপনাকে সহযোগিতা করলে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন।

# যারা অগোছালো, তাদের এই বিষণ্ণতা বেশি হয়, সেটা হতে পারে কর্মক্ষেত্রে, হতে পারে নিজের বাসায়। তাই সব কিছু সাজানো- গোছানো রাখতে চেষ্টা করুন।

# মন খারাপ হলে ভালো কোন স্যালোনে গিয়ে নিজের রেগুলার লুকটাকে কিছুটা পরিবর্তন করুন, হতে পারে সেটি হেয়ার কাট, হেয়ার কালার অথবা সেগুলো না চাইলে একটি ভালো ফেশিয়াল বা স্পা! অথবা চাইলে পরিবর্তন করতে পারেন পোশাকও। উজ্জ্বল রঙকে প্রাধান্য দিন, পছন্দের পোশাকটিকেও।

# ছবি তুলুন বা আঁকুন, এমন না যে আপনাকে খুব সুন্দর পারতেই হবে, কিন্তু সুন্দর করার চেষ্টা করতে থাকুন, বিষণ্নতা কমবে।

# মন খারাপের সময়টাতে নিজে ভিন্ন কিছু রান্না করুন অথবা চলে যান অপরিচিত কোনো খাবারের দোকানে, তাদের স্পেশাল বা আপনার জন্য নতুন এমন কোন একটি আইটেম ট্রাই করে দেখুন। দেখবেন ভালো খাবার আপনাকে অনেকখানি প্রশান্তি দিচ্ছে।

# দূরে কোথাও যাওয়ার সময় অথবা সুযোগ না থাকলে কোনো পার্কেই না হয় কাটিয়ে আসুন সময়। রোলার কোস্টার রাইড খারাপ লাগবে না কোনভাবেই।

# মন খারাপ হলে বৈরী কোনো পরিবেশে ঘুরতে যান, রোমাঞ্চকর কিছু করুন। দেখবেন যখন আপনি মজার কিছু নিয়ে উত্তেজিত থাকবেন, মন ভালো হয়ে যাবে।