বিশ্ব মানবতা নিশ্চুপ-শান্তির নোবেন আজ তাঁর কাঁধে

বিশ্ব মানবতা নিশ্চুপ-শান্তির নোবেন আজ তাঁর কাঁধে

SHARE
World humanity is silent about rohingya issue

মানুষ মানুষের জন্য- কথাটি নিতান্তই স্বার্থান্বেষী মহলের বেলায় প্রযোজ্য; মানবতার বেলায় একেবারেই অকার্যকর। যদি তাই না হবে তাহলে কেন গুটি কয়েক লোকের অপকর্মের দায়ভার আজ সমস্ত সম্প্রদায় বহন করছে? শান্তিতে নোবেল বিজয়ী অং সান সুচির নেতৃত্বাধীন মিয়ানমার সেনাবাহিনী যখন হাজার হাজার রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যা করছে তখন বিশ্ব মানবতা নিশ্চুপ

০৯ অক্টোবর মিয়ানমারের তিনটি সীমান্ত পোস্টে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলায় সে দেশের নয় সীমান্ত রক্ষীসহ ১৪ জনের মৃত্যু হলে জঙ্গি নিধনের লক্ষ্যে ‘ক্লিয়ারেন্স অপারেশন’ নামে রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গা অধ্যুষিত মংডু এলাকায় সেনাবাহিনী ব্যাপক ধরপাকড়, লুটপাট, নৃশংস হত্যাযজ্ঞ, বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ শুরু করে। সেনাবাহিনী হেলিকপ্টার ও অ্যাম্বুসের মাধ্যমে গুলি করে এবং মধ্যযুগীয় বর্বরতায় জীবন্ত পুড়িয়ে নিরীহ রোহিঙ্গাদের নির্মমভাবে হত্যা করেছে। বর্মিবাহিনী নারীদের প্রকাশ্যে ধর্ষণ করেছে।

রাখাইন সেনারা মংডুতে ১৭টি রোহিঙ্গা অধ্যুষিত গ্রামের ৯০ শতাংশ বসত গৃহ পুড়িয়ে দিয়েছে। সেখানে গৃহহীন হয়ে পড়েছে প্রায় ১ লক্ষ অধিক লোক। বিভিন্ন গণ ও সমাজিক মাধ্যমে দেখা যায়, জ্বলন্ত রোহিঙ্গা গ্রাম, হাত, পা বাঁধা বিকৃত লাশ, রাতের অন্ধকারে জঙ্গল দিয়ে পলায়নরত নারী ও পুরুষ। তা ছাড়া আরো বীভৎস চিত্র।

রাখাইন রাজ্যের সহিংসতা থেকে বাঁচতে রোহিঙ্গারা তাদের বাড়িঘর ছেড়ে যেভাবে পালিয়ে এসেছে সেটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে উঠে আসছে না। সবাই যেন নিরব দর্শকের মত দাঁড়িয়ে দেখছে আজ, এই কান্নার আওয়াজ ধ্বনিত হচ্ছে মানবতার আকাশে। লুণ্ঠিত হচ্ছে মানবতা, যেন মানুষের কোন মূল্য নেই এই ধরায়, অথচ মানুষই শ্রেষ্ঠ, স্রষ্ঠার এক মহাদান। আজ তবে কোথায় মানবতা, মনুষ্যত্ব, জীবনের জয়গান! কোথায় হারিয়ে গেলো আজ স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ সেই মহাদান!

World humanity is silent about rohingya issue

তবে মানবতার পরিচয় দিয়েছে রাখাইন যুবক। দীর্ঘ পথ নিজের কাঁধে করে বাবা-মা কে নিয়ে এসেছে বাঙ্গলাদেশে। শুধুমাত্র প্রাণে বাঁচার আশায়।

রাখাইনের সংঘাত কবলিত এলাকাগুলোতে গণমাধ্যমের প্রবেশাধিকার খুবই সীমিত। শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার প্রাপ্ত অং সান সুচি ও তার সরকার এ পাশবিক বর্বরতায় বিশ্বমানবতা আজ নিশ্চুপ। দীর্ঘ সমালোচনার মুখে … প্রশ্ন ওঠে, তবে কি তাকে শান্তির নামে অশান্তি সৃষ্টি করার জন্য নোবেল পুরষ্কার প্রদান করা হয়েছিল? 

 

LEAVE A REPLY