Home লাইফস্টাইল বর্ষায় পায়ের যত্নে কার্যকরী পরামর্শ

বর্ষায় পায়ের যত্নে কার্যকরী পরামর্শ

বর্ষাকালে ঝুম বৃষ্টিতে ভেজার মজাই আলাদা। কিন্তু মজাটা মাটি হয় তখনই, যখন বৃষ্টিতে রাস্তায় জমে থাকা নোংরা পানি পায়ে লেগে যায়। কারণ এই পানি পায়ের জন্য খুবই ক্ষতিকর। দীর্ঘক্ষণ ভেজা থাকার কারণে ফাঙ্গাসের সংক্রমণ হয়ে পায়ে বিভিন্ন সমস্যা হয়। ময়লা পানিতে পা ভিজলে ফুসকুড়ি, চুলকানির মতো নানা ধরনের চর্মরোগ হতে পারে। তাই এ সময় পায়ের বিশেষ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। বিশেষ করে যাঁরা বাইরে কাজ করেন, তাঁদের ক্ষেত্রে বিষয়টি বেশি প্রযোজ্য।

এই ঋতুতে বাসায় ফিরে পা পরিচ্ছন্ন রাখা এবং বিশেষভাবে যত্ন নেয়া খুব জরুরি। কিছু নির্দিষ্ট স্বাস্থ্যবিধি রয়েছে যা নিয়মিত মেনে চললেই কোনো রকম সংক্রমণ কিংবা চর্মরোগ সহজেই এড়ানো যায়।

বর্ষায় পায়ের যত্নে প্রতিদিন অন্তত একবার পা ভালো করে ধোন। পা ধোয়ার ক্ষেত্রে হালকা গরম পানি ব্যবহার করুন। ধোয়ার আগে ১০ থেকে ১৫ মিনিট হালকা গরম পানিতে পা ভিজিয়ে রাখুন। পা ভেজানোর পানিতে সামান্য শাওয়ার জেল মিশিয়ে নিন।

বর্ষায় এমন ধরনের ঢাকা জুতো ব্যবহার করুন যাতে পায়ে একেবারেই জল না লাগে। কিন্তু এই ধরনের ঢাকা জুতো সারাদিন পরে থাকলে পায়ে ময়েশ্চার জমার সম্ভাবনা প্রবল হয়। তাই এই জুতো পরার আগে পায়ের পাতায় ভালো করে অ্যান্টি-পার্সপিরেন্ট স্প্রে করে নিন অথবা অ্যাস্ট্রিজেন্ট সলিউশন মেখে নিন দু’পায়ের পাতায়। অ্যাস্ট্রিজেন্ট ঘাম হওয়া আটকায়।

শোয়ার আগে পা পরিষ্কারের জন্য কিছু সময় ব্যয় করুন। পরিষ্কারের সময় পায়ের আঙুলের দিকে মনোযোগ দিন এবং ত্বকের মৃতকোষ ঘষে দূর করুন। এরপর পা ভালোভাবে শুকিয়ে ময়েশ্চারাইজার লাগান।

পরনের জুতো অবশ্যই পরিষ্কার রাখবেন। তবে পরবর্তীতে পায়ে পরার আগে জুতো জোড়া পর্যাপ্ত বাতাসে শুকিয়ে নিবেন। যারা অফিস করেন তারা একজোড়া এক্সট্রা জুতো ও মোজা রাখার চেষ্টা করবেন। যাতে একজোড়া ভিজে গেলেও কোনো সমস্যা না হয়।

যাদের খুব তাড়াতাড়ি পায়ে ইনফেকশন দেখা দেয় তারা মোজা বা জুতো পরার আগে ফাঙ্গাস রোধক পাউডার দিয়ে নিতে পারেন।