ফোরজি সেবা আজ থেকেই

ফোরজি সেবা আজ থেকেই

SHARE
Four-G services from today

বাংলাদেশে আজ সোমবার থেকে চালু হচ্ছে ফোর-জি বা চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক। ফোর-জি লাইসেন্স পাওয়ার ১৫ মিনিটের মধ্যে গ্রাহক পর্যায়ে ফোরজি সেবা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে গ্রামীণফোন (জিপি)।

আজ লাইসেন্স হস্তান্তর করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

শুরুর কয়েক দিন শুধু রাজধানীতে ফোরজি সেবা চালু হবে। তবে যতো দ্রুত সম্ভব এই সেবা দেশব্যাপী কার্যকর করতে চায় জিপি।

বিটিআরসি ‍সূত্র জানিয়েছে, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদের উপস্থিতিতে আজ সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকা ক্লাবে মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছে লাইসেন্স হস্তান্তর করা হবে। বিটিআরসি ও মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশ (অ্যামটব) আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার।

কিন্তু কীভাবে জানবেন আপনার সিম ফোরজি কি না? এ সমস্যার সমাধান দিয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো। সিমটি ফোরজি কি না, সেটি বিনা মূল্যে জানা যাবে।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো কিছু নম্বর দিয়েছে, যা ডায়াল করলে এবং খুদে বার্তা পাঠাতে হবে। ফিরতি বার্তায় সংশ্লিষ্ট অপারেটরগুলো জানিয়ে দেবে যে আপনার সিমটি চতুর্থ প্রজন্মের কি না। এরই মধ্যে আবার মোবাইল অপারেটরগুলো ফোরজি সেবা পেতে আগ্রহী ব্যক্তিদের গ্রাহকসেবা কেন্দ্রে গিয়ে সিম বদলে নেওয়ার জন্য বার্তা পাঠিয়েছে।

ফোরজি টেলিযোগাযোগ সেবা পেতে হলে ব্যবহারকারীকে যা করতে হবে—

ফোরজি সেবা পেতে হলে সিমকার্ড ও হ্যান্ডসেটটি এ প্রযুক্তির উপযোগী হতে হবে। সিমটি ফোরজি কি না, সেটি বিনা মূল্যে জানার সুযোগ আছে।
গ্রামীণফোন ব্যবহারকারীরা মোবাইল ফোন থেকে *১২১*৩২৩২# ডায়াল করলেই ফিরতি বার্তায় সিমটি ফোরজি কি না, তা জানতে পারবেন। রবির গ্রাহকদের এ জন্য ডায়াল করতে হবে *১২৩*৪৪#। বাংলালিংকের গ্রাহকেরা মোবাইল ফোন থেকে 4G লিখে ৫০০০ নম্বরে খুদে বার্তা পাঠালে ফিরতি বার্তায় ফোরজি সিমের বিষয়ে তথ্য পাবেন। টেলিটক তাদের ব্যবহারকারীদের জন্য এখনো এ ধরনের কোনো সেবা চালু করেনি।

সিমটি যদি ফোরজি না হয়, তাহলে তা সংশ্লিষ্ট মোবাইল ফোন অপারেটরের গ্রাহকসেবা কেন্দ্র থেকে পরিবর্তন করে নিতে হবে। এ জন্য মূল্য সংযোজন করসহ (মূসক) খরচ পড়বে ১১৫ টাকা। সিম পরিবর্তন করতে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, ছবি ও আঙুলের ছাপ (বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন) দিতে হবে।

আপনার ব্যবহৃত হ্যান্ডসেটটি ফোরজি উপযোগী কি না, সেটি আপনি নিজেই জানতে পারবেন। এ জন্য প্রথমে মোবাইল ফোনের ‘সেটিংস’ অপশনে যেতে হবে। সেখানে নেটওয়ার্ক অথবা ‘ওয়্যারলেস অ্যান্ড নেটওয়ার্কস’-এ গেলে দেখা যাবে ফোনটি ফোরজি প্রযুক্তির কি না। মোবাইল ফোন অপারেটরের সেবাকেন্দ্র ও বিভিন্ন স্মার্টফোন ব্র্যান্ডের বিক্রয়কেন্দ্র থেকেও ফোরজি হ্যান্ডসেটের তথ্য জানা যাবে।

২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফোর-জি ইন্টারনেট সেবা শুরুর পরিকল্পনা ছিল টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের। সেক্ষেত্রে পরিকল্পনা ছিল ২০ ফেব্রুয়ারি, মঙ্গলবার ফোর-জি সেবার লাইসেন্স হস্তান্তর করা হবে। কিন্তু পরবর্তীতে সেই পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনা হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আজ সোমবারই লাইসেন্স হস্তান্তর করা হবে এবং আজ থেকেই মিলবে চতুর্থ প্রজন্মের ইন্টারনেট সেবা বা ফোর-জি।