পোশাকে বৈশাখী রং

পোশাকে বৈশাখী রং

SHARE
Baishakhi color dress up

শীত-বসন্ত পেরিয়ে চৈত্রের ঝকঝকে নীল আকাশ মনে করিয়ে দেয় বৈশাখ আসছে। পহেলা বৈশাখ মানেই নূতনের আহবান। ঝালর মোড়ানো দোকানে দোকানে হালখাতা, পরিপাটি ঘরদোর, শাড়ি-পাঞ্জাবিতে উচ্ছল তরুণ-তরুণী আর রাজপথ দাপিয়ে বেড়ানো ছোট ছোট সোনামণি। বৈশাখ মানে মঙ্গল শোভাযাত্রায় সাদা মেঘের মতো ভেসে বেড়ানো, পুরোনোকে পেছনে ফেলে নতুন পোশাকে নতুন দিনের শুরু।

বাংলা সংস্কৃতির সবচেয়ে বৃহৎ উৎসবে সবার চাওয়া স্বদেশি পোশাক। সে সুবাদে দেশি পোশাকের ফ্যাশন ও বুটিক হাউসগুলো এখন জমজমাট। রাজধানীর আজিজ সুপার মার্কেট, বেইলি রোডের বুটিক ও ফ্যাশন হাউসগুলো ঘুরে দেখা যায়—বৈশাখে নানা রঙের নতুন পোশাকে নিজেকে সাজাতে একটু একটু ভিড় করেছে ক্রেতারা। দিন যত গড়াবে ক্রেতাদের সমাগোম তত বাড়বে। লাল, সাদা, নীলসহ বাহারি রঙে নিজেকে সাজাতে খুঁজে ফিরছে পছন্দের পোশাকটি। লাল ও সাদা রঙের পাঞ্জাবি, শাড়ি আর জামায় ফ্যাশন হাউসগুলোও ফুটিয়ে তুলেছে বাঙালিয়ানা। আর সেই বাঙালিয়ানা পোশাক কিনতেই ভিড় করছে ক্রেতারা।

ফ্যাশন ও বুটিক হাউসগুলো পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে এনেছে নানা ধরনের পোশাক। সেসবের কাটতি বাড়াতে অনেক প্রতিষ্ঠানই দিচ্ছে আকর্ষণীয় সব অফার। মার্কেটগুলো সাজানো হচ্ছে পহেলা বৈশাখের রূপে।

বৈশাখের সময় সাধারণত গরম থাকে বেশি। বিষয়টি মাথায় রেখে ফ্যাশন হাউসগুলোও আরামদায়ক পোশাক এনেছে। প্রায় সব পোশাকেই রয়েছে সাদা ও লাল রঙের ছোপ। বেশির ভাগ পোশাকই সব বয়সী মানুষের জন্য স্বল্প বাজেটের। তবে দামি পোশাক আছে অনেক প্রতিষ্ঠানেই। বিক্রিবাট্টাও জমজমাট। টাঙ্গাইল শাড়ি কুটির, কে-ক্রাফট, মিয়া বিবি, এবি ফ্যাশন মেকার, এম ক্রাফট, রঙ বাংলাদেশ, অঞ্জন’স, সাদাকালো, কুমুদিনী, বাংলার মেলা, দেশাল, কাপড়-ই-বাংলা, সৃষ্টি, নন্দন কুটির, নিপুণ ক্রাফট, অরণ্য ক্রাফট, নিত্যউপহার, শিবনী, মেঘ, ফোর ডাইমেনশনসসহ ফ্যাশন ভুবনের শীর্ষ ব্র্যান্ডগুলো এনেছে বাহারি বৈশাখী পোশাক।