ধর্ষণের পর খুঁটিতে বেঁধে ব্লেড দিয়ে তরুণীকে নির্যাতন

ধর্ষণের পর খুঁটিতে বেঁধে ব্লেড দিয়ে তরুণীকে নির্যাতন

SHARE
After rape, the girl is tortured with a blade tied on the pillow

জামালপুরের বকশীগঞ্জ পৌরসভার পূর্ব মেষেরচর গ্রামে পঞ্চম শ্রেণির এক তরুণীকে ধর্ষণের পর খুঁটিতে বেঁধে ব্লেড দিয়ে নির্যাতন চালিয়েছে এক বখাটে যুবক মো. আকাশ (২০)। গতকাল শনিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে ওই এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় ওই বখাটে যুবকে আটক করেছে পুলিশ।

আহত তরুণীকে উদ্ধার করে প্রথমে বকশীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য আজ রোববার দুপুরে তাকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে বকশীগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেস ওসি আসলাম হোসেন।

তরুণীর পরিবারের অভিযোগ, শনিবার রাত তিনটার দিকে প্রকৃতির ডাকে ওই ছাত্রী ঘর থেকে বের হয়। এ সময় ওত পেতে থাকা আকাশ ওই ছাত্রীর মুখে মাটি গুজে বাড়ির পাশের একটি মাঠে অপহরণ করে নিয়ে যান। সেখানে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে ধর্ষণের পর তার শরীরের বিভিন্নস্থানে ব্লেড দিয়ে কেটে ক্ষত বিক্ষত করে দেয়। নির্যাতনের এক পর্যায়ে মেয়ের ডাক চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে গেলে সে পালিয়ে যায়। এমতাবস্থায় ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে বকশীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়।

ওই স্কুলছাত্রীর বাবা বলেন, আকাশ দীর্ঘদিন ধরে তার মেয়েকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসে, সাড়া না পেয়ে তাকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। প্রেমে সারা না পেয়ে ওই তরুণীকে বিয়ের প্রস্তাবও দেয় আকাশ। এতেও তরুণী রাজি না হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে সে। এরপরও বিভিন্ন সময় ওই ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করাসহ নানা ধরনের হুমকি দিয়ে আসছিলেন আকাশ। আকাশের কারণে প্রায় এক বছর আগে মেয়েটিকে স্কুল ছাড়তে হয়েছে।

জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মো. শফিকুজ্জামান বলেন, মেয়েটিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ভর্তি করা হয়েছে। মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ওই ছাত্রীকে এখন গাইনি ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ব্লেড দিয়ে ওই ছাত্রীর হাতে ও ডান পায়ের ঊরু ব্যাপক জখম করা হয়েছে। ১০টি সেলাই দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY