ধর্ষক বাবা রাম রহিমের সম্পর্ক অবশেষে মুখ খুললেন হানিপ্রীত

ধর্ষক বাবা রাম রহিমের সম্পর্ক অবশেষে মুখ খুললেন হানিপ্রীত

SHARE
Harpreet's relationship with rapist Baba Rahim finally ended

ধর্ষক বাবা রাম রহিমের সম্পর্ক অবশেষে মুখ খুললেন হানিপ্রীত ইশান। প্রায় দেড় মাস গা ঢাকা দিয়ে থাকার পর মঙ্গলবার গোপন ডেরা থেকে ভারতীয় দু’টি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেন তিনি। মঙ্গলবার তিনি আদালতে আত্মসমর্পণ করতে পারেন বলেও এতে জানান হানিপ্রীত।

রাম রহিম জেলে যাওয়ার পর থেকেই হানিপ্রীতের সঙ্গে তার সম্পর্ক নিয়ে জলঘোলা হয়েছে। নিত্যদিন ডেরার রাম রহিমের প্রাক্তন অনুগামীদের কথায় উঠে এসেছে একাধিক ঘটনার কথা। কিন্তু এবার এসবের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলেন হানিপ্রীত। ‘ইন্ডিয়া টুডে’ কে বললেন, ”বর্তমানে আমার মানসিক অবস্থা কী, তা ভাষায় বোঝানো যাবে না। সংবাদমাধ্যমগুলি আমাদের সম্পর্কে ভুল খবর দেখাচ্ছে। যতটা দেখানো হচ্ছে, তার অধিকাংশই মিথ্যা। মিথ্যা রটনা রটছে।”

তিনি জানান, এতদিন তিনি রাম রহিমের ছত্রছায়ায় ছিলেন। কিন্তু এখন একলাবোধ করছেন। লুকআউট নোটিস জারি হওয়ার পর থেকেই তিনি অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন বলে জানান।

তার আরো প্রশ্ন, লোকে কেন তার ও গুরমিতের বাবা-মেয়ের সম্পর্কে কালি ছেটাচ্ছে। তার অভিযোগ, তাদের বিরুদ্ধে নোংরা প্রচার চলছে। একজন বাবা কি তার মেয়েকে ভালোবাসতে পারেন না, তাকে ভালোবেসে ছুঁতে পারেন না? তার প্রশ্ন।

সাক্ষাৎকারে নিজের সাবেক স্বামী বিশ্বাস গুপ্তের চরিত্র নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন হানিপ্রীত। একই সঙ্গে দাবি করেছেন, নারীদের ওপরে নির্যাতন নয়, বরং ছয় কোটি অবলা নারীকে আত্মনির্ভর করে বাঁচতে শিখিয়েছেন রাম রহিম ও তার সংগঠন।

গত অগস্টের শেষ দিকে ডেরা প্রধানকে দোষী সাব্যস্ত করার দিন থেকেই পলাতক ছিলেন হানিপ্রীত। সীমান্ত পেরিয়ে তিনি নেপালে চলে গিয়েছেন বলেও বারে বারে খবর হয়। কিন্তু, হানিপ্রীতের কোনও সন্ধান পায়নি পুলিশ। গত সপ্তাহে দিল্লি হাইকোর্টে তাঁর আইনজীবী ট্রানজিট অ্যান্টিসিপেটরি জামিনের আবেদন করেন। আদালত সেই আর্জি খারিজ করে দেয়।

ওই সাক্ষাৎকার হানিপ্রীত বলেন, আমি কোথাও যাইনি। নেপাল তো নয়ই। ভারতেই ছিলাম। আসলে সকলের সামনে আসতে পারিনি, এতটাই ডিপ্রেশনে ছিলাম। পঞ্জাব-হরিয়ানা হাইকোর্টে আত্মসমর্পণ করব।

LEAVE A REPLY