ধন্যবাদ দিন আপনার অতীতের মানুষটিকে

ধন্যবাদ দিন আপনার অতীতের মানুষটিকে

SHARE
Thanks

যে মানুষটির নাম মিশে রয়েছে আপনার অতীতের কষ্টকর অভিজ্ঞতার সাথে তার প্রতি আপনার হাজারটা অভিযোগ থাকতেই পারে। মানুষটি হয়তো সত্যিই আপনার জীবনকে ছিমছাম একটা স্থান থেকে টেনে নিয়ে গিয়েছে বিপর্যয়ের শেষ সীমায়। পুরোপুরি ভেঙে দিয়েছে আপনি আর আপনার মনটাকে।তবে তারপরেও এমন কিছু ব্যাপার তো নিশ্চয় আছে যেগুলোর জন্যে আপনার প্রাক্তন ভালোবাসার মানুষটিকে আপনি ধন্যবাদ জানাতেই পারেন ।  চলুন জেনে নিই কী সেই ব্যাপারগুলো।

১. আত্মনিয়ন্ত্রণের শিক্ষা দেওয়ার জন্যে-
মানুষ যেহেতু মানবিকবোধসম্পন্ন প্রাণী, তাই তার ভেতরে আবেগ থাকবেই। বিশেষ করে রাগ, ক্ষোভ, কষ্ট, আনন্দ- এই আবেগগুলোর কাছে ওপর নিয়ন্ত্রণ থাকেনা বলেই অনেকেই শেষ পর্যন্ত জীবনের বড় বড় যুদ্ধে হেরে যান । কিন্ত আপনি যদি এখনো হন জীবনের প্রথম অংশের যাত্রী তাহলে বিচ্ছেদের জন্যে আপনার প্রাক্তনকে ধন্যবাদ জানাতেই পারেন আপনি। কারণ, তার এই চলে যাওয়া আপনাকে কেবল নিজের আবেগকে সামলাতেই নয়, সাহায্য করবে সাহসী হয়ে সামনের পথগুলোকে পার করতেও।

২. নিজের প্রতি ভালোবাসাকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্যে-
মানুষ নিজেকে ভালোবাসে এটা যেমন সত্যি তেমনি  অন্য কাউকে বিশেষভাবে ভালোবাসতে গিয়ে এই কথাটা প্রায়ই ভুলে যায় সে।আর  তখন নিজের ভালো থাকা নয়, গুরুত্ব পায় অন্যের ভালোলাগা- মন্দলাগা। এমনকি ভালোবেসে নিজের জীবনটাও পর্যন্ত দিয়ে দেন অনেকে। এমন নজির বিরল নয়।আর এই অহেতুক নেশাগ্রস্ততা থেকে আপনাকে মুক্তি দিয়েছে যে মানুষটি সে আপনার প্রাক্তন প্রেমিক। আপনাকে আবার ফিরিয়ে দিয়েছে আপনার কাছে। এবার বলুন, ধন্যবাদ কি তার প্রাপ্য নয়?

৩. নতুন করে স্বপ্ন দেখার সুযোগ করে দেওয়ার জন্যে-
একবার ভেবে দেখুন তো, সম্পর্কে থাকার সময় নিজের জীবনকে একঘেঁয়েভাবে একটা নিয়মের ভেতরে এনে ফেলেছিলেন আপনি। এখন এমনটা করবেন, তারপর অমনটা। কতশত ভাবনা আর নিয়ম-কানুনের বেড়াজাল। আর এখন? আপনার সামনে পড়ে রয়েছে পুরোটা জীবন ।সামনে এগিয়ে যেতে পারেন আপনি বিনাদ্বিধায় । স্বপ্ন দেখতে পারেন নতুন করে। আর এমন একটা সুযোগ যখন তৈরি করে দিয়েছেনযে মানুষটি , ধন্যবাদ কি তার প্রাপ্য নয়।

৪. জীবনকে বুঝতে শেখানোর জন্যে-
আর এই যে এখন আপনি আরো ভালো করে মানুষকে পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ করতে পারছেন, ভালো আর মন্দের মাঝের ভিন্নতা, কাকে বিশ্বাস করা যায় আর কাকে যায়না সেটাও বুঝতে পারছেন- সেটার কৃতিত্ব কি কেবলই আপনার? একদমই না। তবে এর জন্যে দায়ী আপনার জীবনের অভিজ্ঞতাগুলো। খুব কঠিন আর তিক্ত সে অভিজ্ঞতা। যেগুলোর অনেকটাই আপনি পেয়েছেন আপনার প্রাক্তনের কাছ থেকে।

৫. আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনার জন্যে-
আপনার বিচ্ছেদের সময়গুলোকে মনে করুন। একের পর এক এসএমএস দিয়েছেন আপনি। উত্তর আসেনি। ফোন করেছেন। রিসিভ করেনি আপনার প্রাক্তন। ভাবছেন, খুব খারাপ কোন কাজ করেছে সে? হ্যাঁ! খারাপ তো সে করেছেই। আপনার জীবনটাকে ভেঙে-চুরে দিয়ে নিজের ইচ্ছেমতন যখন ইচ্ছে তখন সেটাকে ফেলে রেখে গিয়েছে। আপনাকে একা করে দিয়ে গিয়েছে। তবে এই একা করে দিয়েই কিন্ত আপনাকে বোঝাতে সক্ষম করেছে যে, প্রাক্তনই সবকিছু নয়। পৃথিবীতে আরো অনেককিছু রয়েছে। যেগুলোকে আপনি একাই সামলাতে পারেন। আপনাকে শক্ত হয়ে উঠতে সাহায্য করেছে সেই মানুষটি।তাই ধন্যবাদ দিন মানুষটিকে।