তুলসীপাতার উপকারিতা

তুলসীপাতার উপকারিতা

SHARE
Tulsi pata

আমাদের সবারই কমবেশি পরিচিত তুলসিপাতা। অনেক সময় কারো চরিত্রের শুদ্ধতা বোঝাতে আমরা তুলসিপাতা কথাটি ব্যবহার করে থাকি। এছাড়া এর রয়েছে নানা ধরনের রোগ নিরাময়ের ক্ষমতা।

আসুন তবে জেনে নিই এর উপকারী কিছু গুণ সম্পর্কে-

# তুলসী পাতা ঔষধি গুণ সমৃদ্ধ হওয়ায় এটি নার্ভ টনিক ও স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিকারী। এটা শ্বাস নালী থেকে সর্দি-কাশী দূর করে থাকে।

# ক্ষত সারানোর ক্ষমতা রয়েছে তুলসীর।

# তুলসী পাকস্থলীর শক্তি বৃদ্ধি করে ও অনেক বেশি ঘাম নিঃসৃত হতে সাহায্য করে।

# তুলসী পাতায় প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও এসেনশিয়াল অয়েল থাকায় ইউজেনল, মিথাইল ইউজেনল ও ক্যারিওফাইলিন উৎপন্ন করে যা অগ্নাশয়ের বিটা সেলকে কাজ করতে সাহায্য করে( বিটা সেল ইনসুলিন জমা রাখে ও নিঃসৃত করে)। যার ফলে ইনসুলিন এর সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি পায়। এতে ব্লাড সুগার কমে এবং ডায়াবেটিস ভালো হয়।

# রক্তের ইউরিক এসিড-এর লেভেলকে কমতে সাহায্য করে কিডনিকে পরিষ্কার করে তুলসী পাতা।

# তুলসীর অ্যাসেটিক এসিড এবং এসেনশিয়াল অয়েল এর উপাদান গুলো কিডনির পাথর ভাঙতে সাহায্য করে ও ব্যাথা কমায়।

# তুলসীর জীবাণু নাশক, ছত্রাক নাশক ও ব্যাক্টেরিয়া নাশক ক্ষমতা আছে। তাই এটি জ্বর ভালো করতে পারে। সাধারণ জ্বর থেকে ম্যালেরিয়ার জ্বর পর্যন্ত ভালো করতে পারে তুলসী পাতা।

# চন্দনের পেস্ট এর সাথে তুলসী পাতা বাটা মিশিয়ে কপালে লাগালে মাথাব্যথা ভালো হবে।

# তুলসীর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি কারসেনোজেনিক উপাদান ব্রেস্ট ক্যান্সার ও ওরাল ক্যান্সার এর বৃদ্ধিকে বাধাগ্রস্থ করতে পারে।

# তুলসীতে রয়েছে স্ট্রেস কমানোর ক্ষমতা। সুস্থ মানুষও প্রতিদিন ১২ টি তুলসী পাতা চিবালে স্ট্রেস মুক্ত থাকতে পারবেন।