তালের শাঁসের স্বাস্থ্যগুণ

তালের শাঁসের স্বাস্থ্যগুণ

SHARE
palm kernel-health benefit

আমাদের দেশে খুব জনপ্রিয় একটি খাবার তালের শাঁস। তালের শাঁসকে নারিকেলের মতোই পুষ্টিকর বলে বিবেচনা করা হয়। গরমের এই দিনে অনেকের হাতে পৌঁছে যায় কচি তালের শাঁস। আজ আমরা জানবো তালের শাঁসের স্বাস্থ্যগুণ সম্পর্কে-

বাংলাদেশের ময়মনসিংহ, খুলনা, ফরিদপুর, রাজশাহী, গাজীপুরে তালের ব্যাপক চাষ হলেও ফলটির আদি নিবাস আফ্রিকা। কেউ কেউ বলেন এর জন্মস্থান আমাদের উপমহাদেশেই। তবে এর জন্মস্থান যেখানেই হোক, ফলটি আমাদের সংস্কৃতির সঙ্গে মিশে গেছে এটাই সত্য। বারো মাস গাছে তাল ফললেও কচি তালের শাঁস ঠিক এই সময়টিতেই বাজারে পাওয়া যায়। অবাক করার মতো খাদ্যশক্তি রয়েছে তালের শাঁসে।

মিষ্টি স্বাদের প্রতি ১০০ গ্রাম তালের শাঁসে রয়েছে ৮৭ কিলোক্যালরি, ৮ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, জলীয় অংশ ৮৭.৬ গ্রাম, আমিষ ০.৮ গ্রাম, ফ্যাট ০.১ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেটস ১০.৯ গ্রাম, খাদ্যআঁশ ১ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ২৭ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ৩০ মিলিগ্রাম, লৌহ ১ মিলিগ্রাম, থায়ামিন .০৪ গ্রাম, রিবোফাভিন .০২ মিলিগ্রাম, নিয়াসিন ০.৩ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৫ মিলিগ্রাম। এসব উপাদান আপনার শরীরকে নানা রোগ থেকে রক্ষা করাসহ রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

কচি তালের শাঁস লিভারের সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে। এটি রক্তশূন্যতা দূরীকরণে দারুণ ভূমিকা রাখে।

তালের শাঁসে বিদ্যমান  ক্যালসিয়াম হাঁড় গঠনে দারুণ ভূমিকা রাখে।

গরমের দিনে তালের শাঁসে থাকা জলীয় অংশ পানিশূন্যতা দূর করে। প্রাকৃতিকভাবে দেহকে রাখে ক্লান্তিহীন।

তালে থাকা ভিটামিন সি ও বি কমপ্লেক্স আপনার পানিপানের তৃপ্তি বাড়িয়ে দেয়। ছাড়া খাবারে রুচি বাড়িয়ে দিতেও সহায়তা করবে এটি।

তাল বমিভাব আর বিস্বাদ দূর করতে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এর উপকারী উপদান আপনার ত্বকের যত্ন নিতে সক্ষম।

তালে থাকা ভিটামিন এ দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে। এর এন্টি অক্সিডেন্ট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।