ঝকঝকে সুন্দর দাঁত পেতে করণীয়

ঝকঝকে সুন্দর দাঁত পেতে করণীয়

SHARE
Beautiful teeth

সুন্দর মুখের অন্যতম উপাদান হল সুন্দর দাঁত। হাসি আরও আকর্ষণীয় করতে দরকার ঝকঝকে সাদা দাঁত। ঝকঝকে সুন্দর দাঁত মানে ঝকঝকে সুন্দর হাসি। আর সুন্দর হাসি মানেই সুস্থতা। সুস্থ ও সুন্দর হাসির জন্য তাই ঝকঝকে দাঁতের বিকল্প নেই। তবে অনেক কারণেই দাঁতে হলদেটে ছোপ পড়ে মুখের হাসির বারোটা বাজাতে পারে। বিশেষ করে চা, কফি বা এই ধরনের পানীয় পান করার ফলে দাঁতে হলদেটে ছোপ পড়তে পারে। তাছাড়া ধূমপানের ফলেও দাঁতের স্বাভাবিক রং নষ্ট হয়ে যায়। তাই হাসি আকর্ষণীয় করে তুলতে পরিষ্কার সাদা দাঁত চাইলে কিছু সাধারাণ অভ্যাস গড়ে তোলা যেতে পারে। আর সেজন্য আপনাকে করতে হবে কিছু কাজ। চলুন জেনে নিই ঝকঝকে সুন্দর দাঁত পেতে করণীয় সম্পর্কে-

একটানা অনেক দিন ধরে একই টুথব্রাশ ব্যবহার করা একদমই উচিত না। বহু ব্যবহূত টুথব্রাশ মুখে ব্যাকটেরিয়া ডেকে আনে আর দাঁতও ঠিকমতো পরিষ্কার হয় না। তাই প্রতি দুই মাস অন্তর টুথব্রাশ পাল্টে ফেলা উচিত।

সপ্তাহে অন্তত একবার বেকিং সোডা টুথপেস্টের মতো ব্যবহার করে দাঁত মেজে ফেলুন, দাঁত সাদা হবে আরও। তবে সোডা গিলে ফেলাটা কিন্তু ঠিক হবে না। লবণ ও ১ চিমটি বেকিং সোডা দিয়ে দাঁত মাজলে দাঁত সাদা হয়। এছাড়াও বেকিং সোডা ও হাইড্রোজেন পার অক্সাইড মিশিয়ে দাঁত মাজলে দাঁত সাদা হয়।

টুথপেস্ট হিসেবে ব্যবহার করা যায় লবণ। এটিও দাঁত পরিষ্কারক হিসেবে কাজ করে। আর এভাবে দাঁত ব্রাশের পর অবশ্যই মুখের লবণটুকু ফেলে দিতে হবে।

কাঠের কয়লা দিয়ে দাঁত মাজলে দাঁত সাদা হয়। তবে খেয়াল রাখতে হবে যে কাঁঠের কয়লাটি যেন জীবাণুমুক্ত থাকে এবং কয়লাটি মিহি গুঁড়ো করে নিতে হবে নাহলে দাঁত মাজতে গেলে ব্যথা লাগবে।

আপেলকে বলা হয় প্রাকৃতিক টুথব্রাশ। খাওয়াদাওয়ার পরে একান্তই যদি দাঁত ব্রাশ করার সুযোগ না থাকে। একটি আপেল কিন্তু দাঁত ব্রাশের কাজ করে দিতে পারে। প্রতিদিন সকালে দাঁত ব্রাশের আগে আপেল সিডার ভিনেগার দিয়ে কুলকুচি করলে দাঁত ঝকঝকে হবে। সেই সঙ্গে দাঁত ও মাড়ির ব্যাকটেরিয়াও দূর হবে। ভিনেগার দাঁতের লালচে দাগ দূর করে দাঁতের সৌন্দর্য বাড়াতে পারে।

মাশরুম খান। এতে প্রচুর পরিমাণে পলিস্যাকারাইড থাকে। যা ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে ও ডেন্টাল প্লাক হতে দেয় না।

সবুজ চায়ে প্রচুর ফ্লুরাইড থাকে। এছাড়া এটি এন্টি এসিডিক হওয়ার কারণে দাঁতে হলুদ রং পড়তে বাঁধা দেয়।