চুলের কাটে বদলে দিবে স্টাইল

চুলের কাটে বদলে দিবে স্টাইল

SHARE
Hair-style

ফ্যাশনে এখন ভীষণভাবে ইন থিং হেয়ার ট্যাটু। মানে পাতি বাংলায় চুল নিয়ে হাজারও চুলোচুলি, নানান কারিকুরি। সমীক্ষা বলছে সেই কারিকুরিতে এখন মজেছে তিলোত্তমা। দিব্যি বিভিন্ন হেয়ার ট্যাটু করাচ্ছে এই প্রজন্ম। চাহিদা বাড়ছে। তাই বাড়ছে এর প্রচারও। শহুরে সীমানায় আপাতত আটকে থাকলেও, ধীরে ধীরে বাড়ছে এর পরিসর। এবারে চুলের কাটে বদলে দিবে স্টাইল  

ফুটবলার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, পল পোগবার মত এই শহরেও চুলের কারিকুরি চোখে পড়ছে মাঝেমধ্যেই। এখন শুধু শরীরে ট্যাটু নয়, হেয়ার ট্যাটুও করাতে চাইছেন অনেকে। শহরের অনেক চেনা মুখ হেয়ার ট্যাটু করাতে আগ্রহী। নৃত্যশিল্পী সুদর্শন চক্রবর্তী এই তালিকায় বেশ আগে। ২০০৪ সালেই হেয়ার ট্যাটু করিয়েছেন তিনি। এই ট্যাটু তাকে আত্মবিশ্বাস জোগায়, বলে জানাচ্ছেন সুদর্শন। সম্প্রতি হেয়ার ট্যাটু করিয়েছেন ড্রামার ও ফিটনেস এক্সপার্ট নিকিতা চৌধুরিও।

নতুন লুকে বেশ প্রশংসা পাচ্ছেন তিনি, জানালেন নিজেই। কালার, পার্মিং, স্ট্রেটনিং-এ বেশ ক্ষতি হয় চুলের। তার বদলে এই ট্যাটু, লুক চেঞ্জ করে দিচ্ছে আমূল। ক্ষতিও হচ্ছে না চুলের। তাই এখন ট্যাটুর রাস্তাতেই হাঁটতে চাইছে নতুনরা।

সামনের পুজাতে তাহলে জামাকাপড়ের স্টাইল থাক। হোক হেয়ার ট্যাটু। তাহলে আর কদিন বাদেই বলা যাবে চুলের আমি, চুলের তুমি, চুল দিয়ে যায় চেনা।