ঘরোয়া উপায়ে পান ঝকঝকে সাদা দাঁত

ঘরোয়া উপায়ে পান ঝকঝকে সাদা দাঁত

SHARE
How to get whitening white teeth

ঝকঝকে সাদা দাঁত সে তো সবাই চায়। তবে শুধু দু’বেলা ব্রাশ ঘষলেই বা বার বার ডেনটিস্টের কাছে গিয়ে স্কেলিং করালেই যে দাঁত সাদা হতে পারে তা নয়। আসুন জেনে নিই ঝকঝকে সাদা দাঁত পাওয়ার কিছু উপায়

১) নিয়মিত চা, কফি, রেড ওয়াইন ইত্যাদি খেলে দাঁতে ছোপ ধরে যায়। এগুলি খাওয়া একদম বন্ধ না করতে পারলেও যথাসম্ভব কমিয়ে দিন। এছাড়াও যে কোনও ধরনের এনার্জি ড্রিংকও একই কাজ করে। তাই সেগুলিও বর্জন করুন।

২) অনেকেরই ধারণা বেকিং সোডা দিয়ে দাঁত মাজলে দাঁত সাদা হয়। কথাটা ভুল নয় কিন্তু পাশাপাশি দাঁতের উপরিভাগের এনামেল স্তরটিও ক্ষয়ে যায় খুব দ্রুত। তাই দাঁত সাদা করতে এই টোটকাটি একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয়।

৩) ছেড়ে দিতে হবে ধূমপান ও তামাক সেবন। কেননা এই সমস্ত নেশার দ্রব্যে দাঁত হলদে হওয়া কেউ আটকাতে পারে না। আর এই দাগ সহজে দূরও করা যায় না। তামাক, পান-মশলা খাওয়া একেবারে বর্জন করতে হবে এবং ধূমপান করলেও বড়জোর দিনে একটি।

৪) দাঁতে ছোপ ধরে যাওয়ার আরেকটি কারণ হল সয়া সস, ব্লুবেরি এবং অতিরিক্ত চকোলেট খাওয়ার অভ্যাস ।এছাড়াও এড়িয়ে চলুন যে কোনও ঘন রঙের সস, আচার বা চাটনি জাতীয় জিনিস।

এবার জেনে নিন, সহজ ঘরোয়া উপায়ে কীভাবে পাবেন মুক্তোর মতো দাঁত

১) প্রাকৃতিক এবং ভেষজ উপায়ে দাঁত সাদা করতে খুব ভাল কাজ দেয় অ্যাপ্‌ল সিডার ভিনিগার। ইদানীং শপিং মলগুলিতে পাওয়া যায় এটি। প্রতিদিন দু’ভাগ জল আর একভাগ ভিনিগার দিয়ে ১ মিনিট কুলি করুন। দিনে অন্তত একবার করবেন এটা।

২) বাদাম, কাঁচা গাজর এবং আপেল খাবেন দিনে অন্তত একবার। কেননা এই সব খাবারগুলি প্রাকৃতিক উপায়ে দাঁতের স্ক্র্যাবিংয়ের কাজ করে।

৩) দাঁত মাজার পাশাপাশি জিভও ছোলা দরকারি। এতে শুধু নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধই কাটে না, দাঁতে ছোপ ধরাও আটকায়। কারণ জিভের মধ্যে খাবারের কণা যদি লেগে থাকে তবে তা থেকে ব্যাকটেরিয়ার জন্ম নেয়। এগুলিই দাঁতের উপর হলদে ছোপ ধরার অন্যতম প্রধান কারণ।

৪) যে কোনও খাবার খাওয়ার পর পরই সঙ্গে সঙ্গে মুখ ধুয়ে নিন, বিশেষ করে টক জাতীয় ফল খাওয়ার পরে। অনেকে মুখ না ধুয়ে জল খেয়ে নিয়ে ভাবেন মুখের ভিতরের খাবারের কণা উধাও হল বুঝি। আসলে তা হয় না। আর টক জাতীয় খাবার খেলে খুব সহজেই দাঁতে ছোপ ধরে যায়। ঠিক যেমন বেশি হলুদ দেওয়া খাবারের ক্ষেত্রে হয়।

৫) এমনিতে দু’তিন মাস অন্তর টুথব্রাশ পাল্টানো উচিত কিন্তু অনেকের টুথব্রাশের ব্রিস্‌লস খুব তাড়াতাড়া বেঁকে যায়। তেমনটা হলে প্রত্যেক মাসেই পাল্টাতে হবে টুথব্রাশ। ব্রিস্‌লস বেঁকে গেলে যতই ঘষে ঘষে দাঁত মাজুন না কেন আদতে পরিষ্কার হয় না দাঁত।