গর্ভাস্থায় চাইনিজ খাওয়ায় সচেতন হোন

গর্ভাস্থায় চাইনিজ খাওয়ায় সচেতন হোন

SHARE
Chinese-Food-During-Pregnancy

বর্তমান এই ফ্যাশনের যুগে খাওয়া- দাওয়ায়ও এসেছে নানা রকম ফ্যাশনেবল কার্যকলাপ। এখনকার রেস্তোরাঁগুলোতে বাংলা খাবার ছাড়াও রয়েছে জাপানিজ, কোরিয়ান, মোগলাই, চাইনিজসহ নানা ধরনের দেশি বিদেশী খাবার। অনেক ক্ষেত্রে এমনও হয় যে দেশি খাবারের থেকে বিদেশী খাবারের প্রতি মানুষের জোক বেশি থাকে। কিন্তু সাময়িক মুখরোচক হলেও তা যে শরীর ও স্বাস্থ্যের জন্য ভালো এমনটা কিন্ত নয়। আমাদের দেশের আবহাওয়ার সাথে এ ধরনের খাদ্য অনেকটাই অভিযোজিত নয়। ফলে আমাদের প্রাত্যাহিক খাবারের তালিকায় এ ধরনের খাদ্য না থাকাই শ্রেয়।

বর্তমানে আমাদের দেশে চাইনিজ খাদ্যের ব্যাপক প্রচলন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এমনকি অনেকের দিনই যায় না চাইনিজ না খেলে। কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে এর সীমাবদ্ধতা থেকেই যায়। আবার কোনো কোনো সময় অনেক হাস্যকর রহস্যও লুকিয়ে থাকে। আপনি যদি সন্তানসম্ভবা/ গর্ভবতী হোন এবং আপনি যদি চাইনিজ খেতে পছন্দ করেন তাহলে আপনার জানা দরকার চাইনিজ আপনার জন্য নিরাপদ কিনা। তবে বিশেষজ্ঞরা গর্ভাবস্থায় চাইনিজ না খাওয়ার ক্ষেত্রেই বেশি যুক্তি দেখিয়েছেন। কারণগুলো হলোঃ

> চাইনিজ খাবারে অনেক বেশি পরিমাণ চিনি যুক্ত সস ব্যবহার করা হয় যা গর্ভবতী নারীর জন্য মোটেই ভালো নয়। তাছাড়া চাইনিজ খাবারে প্রচুর ভিনেগারও ব্যবহার করা হয় বিশেষ করে সুশি তৈরিতে। চাইনিজ রাইসেও ভিনেগার ব্যবহার করা হয়, ফলে তা লবণাক্ত ও মিষ্টি হয়ে থাকে।  ডায়েটিশিয়ানরা অন্তঃসত্ত্বা নারীদের সোডিয়াম ও ফ্যাট জাতীয় খাবার খেতে অনুৎসাহিত করেন।

> চাইনিজ খাবারের প্রধান উপাদান হচ্ছে MSG বা মনো সোডিয়াম গ্লুটামেট। এই উপাদানটি চাইনিজ খাবার প্রস্তুতিতে ব্যপকভাবে ব্যবহৃত হয়। চাইনিজ খাবারের স্বাদ বাড়ানোর জন্য ব্যবহার করা হয় অ্যাজিনোমটো, এটি হচ্ছে গ্লুটামিক এসিড সোডিয়াম লবণ যা একটি অপ্রয়োজনীয় অ্যামাইনো এসিড। MSG ক্রমবর্ধমান স্নায়ু ও মস্তিষ্কের জন্য বেশ ক্ষতিকর। প্রতিবেদনে আরও বলা হয় যে, MSG তে যে নিউরোট্রান্সমিটার উপাদান থাকে তা জন্মের পর অটিজম, সিজোফ্রেনিয়া ও সেরিব্রাল পালসির মত মারাত্মক রোগের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। চিকিৎসা বিজ্ঞানে আশঙ্কা করা হয় যে, খুব ছোটবেলায় MSG গ্রহণ করার ফলে শিশুদের মধ্যে অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পায় এবং ভবিষ্যতে সহিংসমূলক কার্যকলাপ করতে ইন্ধন জুগায়।

The NSW Food Authority একটি সংবিধিবদ্ধ সরকারি প্রতিষ্ঠান যা খাদ্য নিরাপত্তা ও সঠিক লেবেল এর ক্ষেত্রে সহযোগিতা করে। এই প্রতিষ্ঠানটি প্রেগন্যান্ট নারীদের জন্য কিছু খাদ্য খাওয়ার ক্ষেত্রে নিয়ম বেঁধে দিয়েছে। আবার কিছু খাদ্যকে ব্লাক লিস্টেও ফেলে দিয়েছে। তাদের মতে, এগুলোতে প্রাণঘাতী ব্যাকটেরিয়া যেমন- লিস্টেরিয়া ও সালমোনেলা থাকে যা একজন গর্ভবতী নারীর জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। NSW এর মতে যে খাবারগুলো খাওয়া যাবে না তা হলোঃ

সালামি ও মুরগি ( ৭৫০ বা তার বেশি ডিগ্রী তাপে যদি রান্না করা হয়)

কাঁচা মাংস

দোকানের সুশি

পনির ( ৭৫ ডিগ্রী বা তার বেশি তাপে প্রস্তুত করা না হলে)

আইসক্রিম

মেয়োনেজ এবং প্যানকেক

প্যাকেটজাত সালাদ, সূর্যমুখী ও সয়াবিনের স্প্রাউট ইত্যাদি।

তাছাড়া চাইনিজ খাবার সম্পর্কে নানা ধরনের মিথ প্রচলিত আছে। এর মধ্যে একটা উল্লেখযোগ্য মিথ হলো, যে মায়েরা গর্ভাবস্থায় বেশি চাইনিজ খাবার খান তাদের সন্তান দুষ্ট প্রকৃতির হয়। সর্বোপরি, এ ক্ষেত্রে আমাদের কারোরই কোনো ধরনের অলসতার অবকাশ নেই। তাই সুন্দর, সুস্থ আগামির শিশুকে অভ্যর্থনা জানাতে আমাদের এই সময়টায় যথেষ্ট সতর্ক থাকা জরুরী।