Home লাইফস্টাইল কেন খাবেন আমলকী

কেন খাবেন আমলকী

এক প্রকার ভেষজ ফল আমলকী। সংস্কৃত ভাষায় যাকে বলে আমালিকা। ইউনানী ও আয়ূবেদি বিভিন্ন ওষুধ তৈরিতে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয় এই আমলকী।

দামে সস্তা হলেও ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে শক্তিশালী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা রয়েছে পুষ্টিগুণে ভরা ছোট আকারের এ ফলটিতে। এছাড়াও শরীরের গিটে গিটে ব্যথা থেকেও উপকার পাবেন আমলকী খেলে। রিউমেটয়েড আথ্রাইটিস ও ওস্টিওপোরোসিস রোগে আমলকীর রস বেশ কাজ করে। শুধু তাইম নয়  অগ্নাশয়(প্যানক্রিয়াসের) ক্ষত সারাতেও আমলকীর কার্যকারিতা লক্ষ্যণীয়।

আমলকী গাছের পাতা, ফল, বাকল সবই কাজে লাগে ওষুধ তৈরিতে। গবেষণায় দেখা গেছে যারা নিয়মিত আমলকী খান তাদের রক্তের ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রিত থাকে। এছাড়াও রক্তের চিনির মাত্রাও কমাতে সাহায্য করে এটি।

পুষ্টিগুণ :

প্রতি ১০০ গ্রাম আমলকীতে রয়েছে ৪৪৫ মিলিগ্রাম এস্করবিক এসিড বা ভিটামিন থাকে। এছাড়াও রয়েছে নানাপ্রকার ভিটামিন ও খনিজ উপাদান। একজন মানুষের প্রতিদিন ৩০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি দরকার যা দিনে ২টি আমলকী খাওয়ার মাধ্যমে পূরণ করা সম্ভব।

আমলকীর যত গুণ

* ত্বক, চুল ও চোখের জন্য আমলকী বেশ উপকারী।

* পুরোনো সর্দি-কাশি থেকে নিরাময়ে আমলকী বেশ কার্যকর।

* যাদের হজমশক্তি কম তারা আমলকী খেয়ে দেখতে পারেন।

* দৃষ্টিশক্তি ও স্মৃতিশক্তি বাড়াতেও আমলকীর জুড়ি নেই।

* অল্প বয়সে চুলপাকা রোধ হয়।

* মুখে রুচি বাড়ে।

* বমি বন্ধেও আমলকী উপকারী।

* পেটের পীড়া, সর্দি, কাশিতে জাদুর মতো কাজ করে আমলকী।

*  লিভার ও জন্ডিস রোগের বিভিন্ন ওষুধ তৈরিতে ব্যবহার করা হয় আমলকী।

* দন্তরোগ সারাতে জুড়ি নেই কাঁচা আমলকীর।

* যাদের অ্যাজমা রয়েছে তারা আমলকী খেলে উপকার পাবেন। নিয়মিত আমলকী খেলে ফুসফুস ও হার্ট ভালো থাকে।

এছাড়া ভিটামিন সি সমৃদ্ধ আমলকীতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান। যা বিভিন্ন রোগ থেকে আরোগ্য লাভ ছাড়াও শরীরের রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থাকে করে তোলে আরো সক্রিয়।