এবার চুলের যত্নে সঙ্গী হবে আদা !

এবার চুলের যত্নে সঙ্গী হবে আদা !

SHARE
Ginger for beautiful hair

হাজারো ভেষজ গুণের এক পরিমিত সম্ভার আদা। সর্দিকাশি, জ্বর-ঠাণ্ডা এমনকি খাবারে লাবণ্য ফিরিয়ে আনতে প্রতিনিয়ত আমরা আদা ব্যাবহার করি। কিন্ত এছাড়াও যে আদার আরও উপকারী গুন আছে সে খবর আমরা কয়জনই বা রাখি। তেমনি আদার এক গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে চুলের পরিচর্যায়।

অনেকে আদাকে শুধু মশলা হিসেবে ই ব্যাবহার করে থাকেন।কিন্ত হারবাল চিকিৎসায় যুগ যুগ ধরে চুলের যত্নে আদা একছত্র আদিপত্ত বিস্তার করে আসছে। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে সবাইকে মোটামুটি চুল পড়ার সমস্যা নিয়ে অনেক ঘোলাপানি খেতে হয়। সেই চুল পরার এক মহাওষুধ হিসেবে আজ আদার ভূমিকা অবর্ণনীয়। তাছাড়া খুসকি দূর করতেও এর জুড়ি মেলা ভার। আদায় রয়েছে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়ামসহ আরও অনেক উপাদান যা চুলের গোঁড়া মজবুত করে এবং চুলকে ঘন কালো ও আরও আকর্ষণীয় করে তুলে। আদার একটা বড় গুণ হচ্ছে এটি প্রচুর এসিডিটি সম্পন্ন।ফলে অনেক রোগ এবং সংক্রামক ব্যাধি থেকে আদা চুলকে রক্ষা করে।

চুলের যত্নে আদার উপকারি দিকগুলোঃ

> আদার মূলের রস চুল শক্ত করে এবং মাথার দুর্গন্ধ দূর করে।

> অলিভ অয়েল আর আদার রসের মিশ্র উপাদান চুলে দিলে খুস্কি অনেকটা কমে যায়।

> আদার রস চুলের রুক্ষতা দূর করে, উজ্জ্বলতা ও লাবণ্য ফিরিয়ে আনে।

> বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়াজনিত ফাঙ্গাস এবং ছত্রাক থেকে আদা রস চুলকে রক্ষা করে।

> মাথায় প্রতিনিয়ত আদার রস ব্যাবহারে মাথার রক্ত সঞ্চালন বাড়ে এবং চুলের বৃদ্ধি ঘটে।

ব্যবহার বিধিঃ

> এক টেবিল চামচ লেবুর রসের সাথে আদার রস মিলিয়ে সমস্ত চুলে মাখিয়ে নিন। তবে চুলের গোঁড়ায় দেয়ার দরকার নেই। এভাবে ১৫ মিনিট রাখুন। তারপর হাল্কা গরম পানিতে ধুয়ে নিন। দেখবেন খুসকি উধাও হয়ে গেছে।

> ২ টেবিল চামচ আদার রসের সাথে ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে ১৫ মিনিট সারা চুলে মাখিয়ে রেখে দিন। তারপর চুল হাল্কা গরম পানিতে ধুয়ে নিন। এভাবে ১ সপ্তাহ ট্রাই করুন। দেখবেন চুল পরা প্রায় শতভাগ কমে গেছে।

> আদার রসের সাথে জজুবা অয়েল এবং লেবুর রস ৩ঃ১ঃ১ অনুপাতে মিশিয়ে প্যাক করে নিন। তারপর ১৫ মিনিট চুলে মাখিয়ে অপেক্ষা করুন। অতঃপর হাল্কা গরম পানিতে চুল ধুয়ে নিন। দেখবেন আপনার চুল মসৃণ, নরম ও উজ্জ্বল হয়ে গেছে।

চুল নারীর সৌন্দর্যের প্রতীক। তাই প্রতিনিয়ত চুলের যত্ন নিন এবং সুস্থ ও সুন্দর থাকুন।