এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ অভিনেত্রী প্রসূন আজাদ

এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ অভিনেত্রী প্রসূন আজাদ

SHARE

নাটকে অভিনয়ের ক্ষেত্রে আগামী এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হতে পারেন অভিনেত্রী প্রসূন আজাদ। এমন সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে টেলিভিশন নাট্যনির্মাতাদের সংগঠন ডিরেক্টরস গিল্ড ।

প্রসূন আজাদকে নিয়ে রোকেয়া প্রাচীর করা অভিযোগের কারণে তিন দিনের সময় দিয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছিল এই সংগঠন। তিন দিন শেষ হয়েছে গত ২৮ অক্টোবর।এই  তিন দিনের মধ্যে কোন যোগাযোগ করেননি প্রসূন বলে জানিয়েছেন ডিরেক্টরস গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক এস এ হক অলিক।

অলিক বলেন, পরিচালক ও প্রযোজকের সঙ্গে ঝামেলা হয়েছে-এ ব্যাপারে প্রসূনের ব্যাখ্যা দেওয়াটা জরুরি ছিল। কিন্তু তিনি তা করেননি। পরে তাঁর ফেসবুক থেকে খুব আপত্তিকর স্ট্যাটাস আসে, যা এই ইন্ডাস্ট্রির সবার জন্য খুবই লজ্জার। সেটাকে কেন্দ্র করে তাঁর কাছে যখন চিঠি দেওয়া হয়, তখনো তিনি উত্তর না দিয়ে চুপ থাকেন। এটা সংগঠনকে অবমাননা, অশ্রদ্ধা ও গুরুত্বহীন ভাবা। এ কারণে আগামী এক বছর ডিরেক্টরস গিল্ডের কোনো সদস্য তাঁকে নিয়ে প্রোডাকশন তৈরি করতে পারবেন না। এ ব্যাপারে টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ও অভিনয়শিল্পী সংঘের সম্মতি রয়েছে।’

অলিক আরো জানান আজকের মধ্যেই প্রসূনের কাছে নিষিদ্ধ হওয়ার ব্যাপারে চিঠি যাবে।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে প্রসূন আজাদ বলেন, ‘আমার এক বড় ভাই ডিরেক্টরস গিল্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। সবাই মিলে বসে খুব তাড়াতাড়ি সমাধান করা হবে।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য “স্বপ্ন সত্যি হতে পারে”  নামের একটি নাটকের শুটিংকে কেন্দ্র করে নির্মাতা ও প্রযোজক রোকেয়া প্রাচীর সঙ্গে অভিনেত্রী প্রসূন আজাদের কথা-কাটাকাটি হয়। পরে দুজনই পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে। এর জের ধরে প্রসূন আজাদের বিরুদ্ধে গত ১৯ অক্টোবর  নাটকের তিন সংগঠনের কাছে অভিযোগ করেন রোকেয়া প্রাচী।