ঈদে অথিতি আপ্যায়ন

ঈদে অথিতি আপ্যায়ন

SHARE
Eid recepie-4

ঈদের  রান্নায় অথিতি আপ্যায়নে স্পেশাল কিছু ডিশ না থাকলে কি চলে! আর তাই এবার নতুন কিছু রান্না করে বাড়িয়ে নিন ঈদের আনন্দ। আসুন জেনে নিই ঈদে অথিতি আপ্যায়ন-এ স্পেশাল রেসিপি সম্পর্কে-

ক্ষীর সেমাই

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

দুধ দেড় লিটার, চিনি স্বাদমতো, মালাই আধা কাপ, কাজুবাদাম, কিশমিশ, পেস্তাবাদাম ও কাঠবাদাম আধা কাপ, সেমাই এক কাপ, এলাচ, দারুচিনি কয়েকটি, ঘি ২ টেবিল চামচ, জাফরান সামান্য (ইচ্ছা)।

প্রস্তুতপ্রণালি :

বাদামগুলো খোসা ছাড়িয়ে মোটা কুচি করে নিন। দেড় লিটার দুধ জ্বাল দিয়ে অর্ধেকের কম পরিমাণ করে রাখুন। এবার প্যানে বা হাঁড়িতে ঘি দিয়ে গরম করুন। এলাচ ও দারুচিনি দিয়ে একটু ভাজুন। বাদামকুচি, কিশমিশ ও সেমাই দিয়ে দিন। মৃদু আঁচে হালকা ভাজুন। গন্ধ ছাড়লেই ঘন দুধ দিয়ে দিন। নেড়ে নেড়ে রান্না করুন। সেমাই সিদ্ধ হয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে দুধ ঘন হয়ে আসবে। সেমাই সিদ্ধ হয়ে গেলে মালাই দিয়ে দিন। জাফরান দিন। ভালো করে মিশিয়ে চুলা বন্ধ করে ফেলুন। ফ্রিজে রেখে সেট হতে দিন। সেট হলে চেরি ও কিশমিশ ছিটিয়ে পরিবেশন করুন।

পনির পোলাও

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

বাসমতি চাল ৫০০ গ্রাম, পনির ২ কাপ, পেঁয়াজ ২টি, লবণ পরিমাণমতো, চিনি ১ চা-চামচ, গরম মসলার গুঁড়া আধা চা-চামচ, কিশমিশ, বাদাম, পেস্তাবাদাম কোয়ার্টার কাপ, ঘি ১৫০ গ্রাম ও তেজপাতা ২টি।

প্রস্তুতপ্রণালি :

চাল আধা ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। পনির কিউব করে কেটে কিশমিশ, পেস্তাবাদাম বাদামি করে ভাজতে হবে। হাঁড়িতে ঘি গরম করে পেঁয়াজ সোনালি রঙ করে ভেজে তুলে নিতে হবে। ঘিয়ে তেজপাতা গোটাকয়েক লবঙ্গ দিয়ে চাল ভাজতে হবে। বেশ খানিকক্ষণ ভেজে তাতে গরম পানি দিতে হবে। চালের দেড় গুণ পানি, চাল তিন ভাগ সিদ্ধ হলে দমে দিয়ে কিশমিশ, বাদাম, পেস্তাবাদাম, গরম মসলা ও পানি দিতে হবে। এবার ১০ মিনিট পর পানি শুকিয়ে এলে ওপরে ভাজা পনির দিয়ে পরিবেশন করুন।

চিকেন রোস্ট

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

১ কেজির একটি মুরগি (চামড়া ছাড়া)। আধা কাপ তেল। আধা কাপ পেঁয়াজ বেরেস্তা। আদাবাটা ১ টেবিল চামচ। রসুনবাটা ১ টেবিল চামচ। মরিচগুঁড়া ১ চা-চামচ। লবণ ১ চা-চামচ, চিনি ১ টেবিল চামচ, আড়াই কাপ পানি, ১ টেবিল চামচ মালাই কিংবা ক্রিম, ১ টেবিল চামচ মাওয়া, ২ টেবিল চামচ ঘি, রোস্ট মসলাÑ ২ টেবিল চামচ এলাচগুঁড়া, ৩টি দারুচিনিগুঁড়া, দেড় চা-চামচ শাহিজিরা, ১ চা-চামচ গোলমরিচগুঁড়া, ১ চা-চামচ জয়ত্রী এবং একটা জায়ফলগুঁড়া, মুরগি মেরিনেইশনের জন্য ১ চা-চামচ লবণ, ১ টেবিল চামচ আদা ও রসুনবাটা।

প্রস্তুতপ্রণালি :

লবণ, আদা ও রসুনবাটা দিয়ে মুরগির টুকরাগুলো মাখিয়ে রেখে দিন। মোটামুটি বড় একটা প্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজ বেরেস্তা করে রেখে দিন আলাদা করে। এই তেলেই মেরিনেট করা মুরগির টুকরাগুলো ভাজতে দিন। হালকা খয়েরি রঙ হলে তেল, লবণ আর চিনি দিন। ভাজা ভাজা হয়ে গেলে আদা-রসুনবাটা আর গুঁড়ামরিচ দিয়ে কষিয়ে নিন কিছুক্ষণ। এবার রোস্ট মসলা দিন ও বেরেস্তা হাত দিয়ে ছাড়িয়ে দিন। বেশ সাবধানে আস্তে আস্তে নাড়বেন, যেন মুরগির টুকরাগুলো ভেঙে না যায় আবার প্যানের তলায় লেগে না যায়। আড়াই কাপ পানি দিয়ে ঢেকে দিন। পানি যখন প্রায় শুকিয়ে আসবে মালাই আর মাওয়া দিয়ে হালকা নেড়ে দিন। ঘি দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ পর তেলটা ঝোলঝোল ভাব হয়ে যাবে, চুলার আঁচ বন্ধ করে দিন। ঝোল বেশি আবার টানবেন না, ঝোল ওপরে উঠে এলেই রান্না হয়ে যাবে। নামিয়ে পরিবেশন করুন।

বাটার চিকেন

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

মুরগির মাংস ৫০০ গ্রাম, পেঁয়াজকুচি ১ কাপ, রসুনকুচি ১ চামচ, আদাবাটা ১ চামচ, টমেটো পিউরি আধা কাপ, গরম মসলা ১ চা-চামচ, ধনেগুঁড়া আধা চা-চামচ, জিরাগুঁড়া আধা চা-চামচ, চিনি ১ চা-চামচ, শুকনো মরিচ গুঁড়া আধা চা-চামচ, হলুদগুঁড়া ১ চা-চামচ, কাজুবাদাম (সামান্য পানি দিয়ে বাটা) ৪ টেবিল চামচ, তেল ৩ টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো, মাখন আধা টেবিল চামচ, কাঁচামরিচ ৫-৬টি।

প্রস্তুতপ্রণালি :

মাংস ধুয়ে সামান্য হলুদ, লবণ মাখিয়ে কিছুক্ষণ রেখে গরম তেলে ভেজে উঠিয়ে রাখতে হবে। ওই তেলে পেঁয়াজ ও রসুন দিয়ে লাল করে ভেজে সব বাটা ও গুঁড়া মসলা কষিয়ে লবণ দিয়ে ভুনতে হবে। এবার মাংসগুলো দিয়ে নেড়ে পানি দিয়ে ঢেকে দিন। ৫ মিনিট পর গরম মসলা ও কাঁচামরিচ দিয়ে ৩-৪ মিনিট দমে রেখে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

মাটন স্টাফ ইন টমেটো

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

টমেটো ৪টি, মাটন কিমা ১ কাপ, পেঁয়াজকুচি ২ টেবিল চামচ, ধনেপাতাকুচি ২ টেবিল চামচ, হলুদগুঁড়া আধা চামচ, মরিচ ১ চামচ, কাঁচামরিচ ৩-৪টি, টমেটোকুচি ২ চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল ২ টেবিল চামচ, সয়াসস আধা চামচ ও চিলিসস ১ চামচ।

প্রস্তুতপ্রণালি :

প্রথমে টমেটোগুলো ধুয়ে বোঁটার অংশ কেটে নিতে হবে। এবার ভেতরের শাঁসটুকু চামচ দিয়ে কুরিয়ে বের করে নিতে হবে। এরপর সামান্য লবণ মেখে রাখুন। এবার কড়াইয়ে তেল গরম করে পেঁয়াজকুচি, ধনেপাতাকুচি, কাঁচামরিচ ও সব মসলা দিয়ে কসিয়ে তাতে কিমা দিয়ে ৫ মিনিট রান্না করতে হবে। সয়াসস ও চিলিসস দিয়ে নেড়ে নামিয়ে ফেলতে হবে। এবার প্রতিটি টমেটোর ভেতরে পরিমাণমতো মাটনপুর ভরে ভাপে রান্না করে নামিয়ে পরিবেশন করব।

স্পেশাল নাটি খিচুড়ি

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

পোলাওয়ের চাল ৫০০ গ্রাম, হালকা ভাজা মসুর ডাল ২০০ গ্রাম, আদাবাটা ১ চা-চামচ, হলুদগুঁড়া ১ চামচ, মরিচগুঁড়া ১ চামচ, জিরাবাটা ১ চামচ, কিশমিশ ১২-১৪টি, দারুচিনি ও এলাচ ২-৩টি, শুকনো মরিচ ২-৩টি, আস্ত জিরা সামান্য, লবণ স্বাদমতো, চিনি সামান্য, কাঁচামরিচ ৭-৮টি, ঘি-২ টেবিল চামচ, কাজুবাদামবাটা ২ চামচ ও কাজুবাদামভাজা ৭-৮টি।

প্রস্তুতপ্রণালি :

চাল ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখতে হবে। এবার হাঁড়িতে তেল গরম করে তাতে শুকনা মরিচ, আস্ত জিরা ও তেজপাতা ফোড়ন দিয়ে চালগুলো হালকা ভেজে নিতে হবে। এবার ভাজা ডালগুলো দিয়ে গরম পানি দিয়ে তাতে লবণ, হলুদগুঁড়া, মরিচ, জিরাগুঁড়া দিয়ে ভালো করে নেড়ে মধ্যম আঁচে ঢেকে রাখতে হবে। খিচুড়ি ঝরঝরে করার জন্য চাল ও ডালের দ্বিগুণ পানি দিতে হবে। এখন পানি কমে এলে এলাচ, কাজুবাদামবাটা, দারুচিনি, কাঁচামরিচ, চিনি, কিশমিশ ও ঘি দিয়ে নেড়ে দমে ৪-৫ মিনিট রাখতে হবে। এবার ঘি ও কাজুবাদামভাজা ছড়িয়ে নামিয়ে পরিবেশন করতে হবে মজাদার নাটি খিচুড়ি।