অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজনে নতুন আইন

অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজনে নতুন আইন

SHARE
New law in connection with limbs

শরীরে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজনের ক্ষেত্রে নিকট আত্মীয়ের পরিচয়ে মিথ্যা তথ্য দিলে দুই বছরের কারাদণ্ড এবং পাঁচ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখে ‘মানবদেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন (সংশোধন) আইন ২০১৭’ এর চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। একইসঙ্গে উভয় দণ্ড দেয়ারও বিধান রাখা হয়েছে।

এর আগে এ আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি ছিল সাত বছরের কারাদণ্ড এবং তিন লাখ টাকা জরিমানা। সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সোমবারের বৈঠকে এ আইনের অনুমোদন দেয়া হয়।

বৈঠক শেষ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আশরাফ শামীম সাংবাদিকদের বলেন, নিকটাত্মীয় বলতে পিতা-মাতা, ভাইবোন, পুত্র-কন্যা, স্বামী-স্ত্রী, রক্তের সম্পর্কের চাচা-চাচি, মামা-মামি, নাতি-নাতনি, মামাতো, খালাতো, চাচাতো, ভাইবোনকে বোঝানো হয়েছে।

আশরাফ শামীম জানান, খসড়াটি আইন হিসেবে কার্যকর হওয়ার পর ৬০ দিনের মধ্যে যেসব সরকারি হাসপাতালে বিশেষায়িত ইউনিট রয়েছে, সেগুলো বাদে সরকারি-বেসরকারি প্রত্যেক হাসপাতালকে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজনের বিষয়ে অনুমোদন নিতে হবে।

জীবিত ব্যক্তির জীবনধারণে কোনও ধরনের সমস্যা না হলে তিনি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দান করতে পারবেন। তবে চোখ ও বোনমেরুর ক্ষেত্রে নিকটাত্মীয় হওয়ার দরকার নেই। এক্ষেত্রে যেকেউ স্বেচ্ছায় অঙ্গ দান করতে পারবেন। মৃত ব্যক্তির ক্ষেত্রে আইনানুগ উত্তরাধিকারীর লিখিত অনুমতি সাপেক্ষে অঙ্গ নেয়া যাবে। মৃত ব্যক্তির ঘোষণার জন্য একটি কমিটি থাকবে, কমিটিতে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের একজন মেডিসিন, একজন নিউরোলজিস্ট, একজন অ্যানেসথেসিয়া বিষয়ক অধ্যাপক থাকবেন। এই কমিটি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে আনুষ্ঠানিকভাবে মৃত ঘোষণা করবেন।

নিকটাত্মীয় ছাড়া অন্য যেকোনো বিধান লঙ্ঘন করলে অথবা লঙ্ঘনে সহায়তা করলে উহা হবে একটি অপরাধ এবং এর জন্য অপরাধী অনধিক তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বা অনধিক ১০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

LEAVE A REPLY